করোনার প্রকোপে এবার জল ঢালা বন্ধ বানেশ্বর ও জল্পেশ মন্দিরে, মন খারাপ ভক্তদের 

ইউবিজি নিউজ ব্যুরো : করোনার থাকায় বন্ধ হয়েছে দোলযাত্রা, শিবের গাজন উৎসব থেকে শুরু করে চড়ক, বাসন্তী পুজো ঈদ, মহরমও। এবার জল ঢালা বন্ধ থাকছে শ্রাবণ মাসে শৈব তীর্থেও । এমনকী হবে না মন্দিরের ভান্ডারাও। করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় মন্দির কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসনের যৌথ বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

প্রসঙ্গত, করোনা আবহের শুরু থেকেই কোচবিহার বানেশ্বর মন্দির ও জলপাইগুড়ি জল্পেশ মন্দিরে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় মন্দির কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসন। পরে পরিস্থিতি পরিবর্তনে তিন মাস পর একে একে দর্শনার্থী ও ভক্তদের জন্য মন্দিরের দরজা খুলে দেওয়া তারাপীঠ কালীঘাট দক্ষিণেশ্বর সহ একাধিক সতীপীঠের। পরবর্তী কালে ফের চিন্তা ভাবনা করা হবে বলেও জানিয়েছে মন্দির কর্তৃপক্ষ। এই সময় কোন দর্শনার্থী বানেশ্বর শিব মন্দির, জল্পেশ মন্দির এর ভেতর ঢুকতে পারবে না।

বছরের এই সময়টাতে বানেশ্বর মন্দির ও জল্পেশ মন্দিরে ভিড় থাকে চোখে পড়ার মতো। শ্রাবণ মাসে বাবার মাথায় জল ঢালা ছাড়াও, উষ্ণ প্রস্রবনের গরম জলে সাধারণত দর্শনার্থীরা জলের তাপমাত্রার ছোঁয়ার জন্যই হাজির হন এখানে। বাবার মাথায় জল ঢালা ও পুজো দেওয়ার জন্য বহু জায়গা থেকে আসেন ভক্তরা। সেই পুজোও এখন বন্ধই থাকবে।প্রতিবার এই সময় মন্দির চত্বর এ উপচে পরতো ভক্তদের ভিড় তবে এবার মন্দির চত্বর পুরো সুনসান।

মন্দির কর্তৃপক্ষের তরফে অচিন্তকুমার ঠাকুর জানান এই মেলাতে ভক্ত সমাগম হবে না এবার তাতে সত্যিই খুব খারাপ লাগছে, এর সাথে অনেক গরীব মানুষ দোকান পাট দিয়ে তাদের সংসার চালায় তারা ও এই মেলা না হাওয়াতে অসহায় হয়ে পড়েছে।

সব মিলিয়ে এই করোনা আবহে চেহারা পাল্টে দিয়েছে কোচবিহার এর রাজ আমলের বানেশ্বর শিব মন্দিরের।