Ad
কোচবিহার

কোচবিহার শীতলকুচিকাণ্ডে‘গুলি চলেছিল বুথের দিকে তাক করেই’! CID রিপোর্টে চাঞ্চল্যকর তথ্য, ঘটনাস্থলে যাচ্ছে ব্যালেন্সিক টিম

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

কোচবিহার, ৬ জুনঃ শীতলকুচিকাণ্ডে সিআইডি তদন্তে উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য। সূত্রের খবর, ভোটের দিন গুলি চলেছিল বুথের দিকে তাক করেই। প্রাথমিক তদন্তে এমনই অনুমান সিআইডি-র। সূত্রের খবর, দরজা ভেদ করে ভিতরে ঢুকে যায় গুলি। তা গিয়ে লাগে ব্ল্যাকবোর্ডের গায়ে। ঘটনার দিন বুথের ভিতরে থাকা এক পুলিশ কর্মী ও এক ভোট কর্মীর বয়ান ইতিমধ্যেই রেকর্ড করেছে সিআইডি। কেন বুথের দিকে তাক করে গুলি চালানো হল, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

বুথের ভিতরে গুলি কে চালালো, কোথা থেকে চালানো হয়েছিল, কোন আগ্নেয়াস্ত্র থেকে চালানো হয়েছিল, সেই বিষয়গুলিই এবার তদন্ত করে দেখতে চাইছে সিআইডি। সূত্রের খবর, সোমবার ঘটনাস্থলে যাবেন সিআইডি আধিকারিকেরা। কেন বুথের দিকে তাক করে গুলি চালানো হল, তা খতিয়ে দেখবেন রাজ্যের গোয়েন্দা সংস্থার ফরেন্সিক বিভাগের ব্যালেস্টিক বিশেষজ্ঞরা। এদিকে সিআইডি রিপোর্ট সামনে আসতেই ফের চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে রাজ্য-রাজনীতিতে।

Ad

এদিকে ঘটনার তদন্তভার হাতে পাওয়ার পরেই সিআইডি-র ডিআইজি কল্যাণ মুখোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে বিশেষ তদন্তকারী দল (সিট) গঠন করা হয় বলে জানা যায়। সেই তদন্ত ইতিমধ্যেই সিটের তত্ত্বাবধানে জোর কদমে চলছে। কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের থেকে শুরু করে পুলিশ-প্রশাসনের কর্তাদেরও পড়তে হচ্ছে তদন্তের মুখে। ঘটনার দিন সত্যিই গ্রামবাসীদের তরফে অশান্তিতে কোনও প্ররোচনা দেওয়া হয়েছিল কি না প্রাশসানের কর্মকর্তাদের থেকে তাও জানার চেষ্টা চালাচ্ছেন সিআইডি-র তদন্তকারী আধিকারিকেরা।

তদন্তের শুরুতেই ঘটনার দিন বুথে থাকা এক পুলিশকর্মী ও এক ভোটকর্মীর বয়ান রেকর্ড করেছেন সিআইডি আধিকারিকরা। জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে মাথাভাঙা থানার তদন্তকারী অফিসার, অফিসার ইনচার্জ, কুইক রেসপন্স টিমের আধিকারিক ও সেক্টর অফিসারকেও। একইসাথে ঘটনার দিন আরটি মোবাইল অফিসার হিসেবে দায়িত্বে থাকা এসআই-এর ভূমিকাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানা যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, চতুর্থ দফার নির্বাচনে সকাল থেকেই হিংসার নিরিখে লাইমলাইটে ছিল শীতলকুচি। রাত থেকে কড়া প্রহরা ছিল কেন্দ্রীয় বাহিনী, পুলিশের। নজর ছিল কমিশনেরও। তবুও রোখা সম্ভব হয়নি হিংসা। সকালেই পাঠানটুলিতে আনন্দ বর্মন নামে তেইশ বছরের এক তরুণের মৃত্যু হয়। তার ঘণ্টা খানেকের খবর আসে মাথাভাঙা ও শীতলকুচির মধ্যবর্তী এলাকা জোরপাটকিতে গুলি চালিয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনী। তাতে চার জনের মৃত্যু হয়। ঘটনার গোটা বাংলায় শোরগোল পড়ে যায়।

তৃতীয়বার মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ গ্রহণের পরই শীতলকুচি কাণ্ডের তদন্তের জন্য বিশেষ দল গঠনের নির্দেশ দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সিট তদন্তে নেমে ২ অফিসার-সহ কেন্দ্রীয় বাহিনীর ৬ জনকে তলব করে।

আরও পড়ুন