কোচবিহার শীতলকুচি কান্ডে চাঞ্চল্যকর তথ্য, আসল ঘটনা তুলে ধরলেন জেলা পুলিশ সুপার দেবাশিস ধর

কোচবিহার, ১০ এপ্রিলঃ আজ সকাল থেকেই শীতলকুচির কান্ড নিয়ে উত্তেজনার পারদ চড়ছে বাংলায়। এরপরই অবশেষে এই প্রসঙ্গে মুখ খুললেন কোচবিহারের পুলিশ সুপার দেবাশিস ধর।

এদিন তিনি এই প্রসঙ্গে জানান, ‘ওই বুথ সাড়ে ৯টা পর্যন্ত ঠিকঠাকই চলছিল। আচমকাই ৯টা ৪৫ নাগাদ বুথ চত্বরে একটি ছেলে অসুস্থ হয়ে পড়ে। এনিয়ে বাহিনীর দুজন জওয়ান এসে বিষয়টি জানতে চান। ত

খনই একটা গুজব ছড়ায় যে, হয়তো তাকে সিআইএসএফের জওয়ানরা মারধর করেছে। তাতেই প্রায় ৩০০-৩৫০ গ্রামবাসী জড়ো হয়ে যান, যাদের মধ্যে বেশিরভাগ মহিলা ছিলেন। তাদের হাতে লোকাল মেড অস্ত্র ছিল।

দা নিয়ে আক্রমণ করার চেষ্টা করে। হোমগার্ডেররও আঘাত লাগে। অস্ত্রশস্ত্র ছিনিয়ে নেওয়ার সম্ভাবনা প্রচন্ডভাবে চলছিল। কুইক রেসপন্স টিমকে ডাকা হয়। সেই সময় তুমুল মারপিট বেঁধে যায়। ব্যালট ইউনিটও ছিনতাই হওয়ার পরিস্থিতি তৈরি হয়।

এরপরই বাহিনী ফায়ার ওপেন করে। ১৫ রাউন্ড গুলি চলে। চারজন মারা গিয়েছে। তাদের বয়স ২২ থেকে ২৫। মৃতদের নাম হামিদুল মিঁয়া, সামিউল মিঁয়া, মনিরুল মিঁয়া ও নুর আলম। যারা ডিউটি করছিল তাদেরও আঘাত লাগে। পরে পুলিশ গিয়ে ব্যালট ইউনিটকে নিরাপদ জায়গায় নিয়ে আসে।’