সর্বোচ্চ ১৭৫ কিমি বেগে আছড়ে পড়ার আশঙ্কা! সাইক্লোন নিয়ে জরুরি বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

নয়াদিল্লি, ১৫ মেঃ আরব সাগরে তৈরি হওয়া সাইক্লোন ‘তাওকতে’ বাড়িয়েই চলেছে শক্তি। ১২ ঘণ্টার মধ্যে তা মারাত্মক আকার নেবে। সর্বশক্তি নিয়ে মঙ্গলবারই গুজরাত উপকূলে আছড়ে পড়বে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর।

ইতিমধ্যেই গুজরাত এবং দিউ উপকূলকে সাইক্লোন নজরদারিতে আনা হয়েছে। তাওকতের পরিস্থিতি নিয়ে আজ শনিবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী এক বৈঠকে বসবেন। কেন্দ্রীয় সরকারের শীর্ষ কর্তাদের নিয়ে বৈঠকে মোদী। ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলা নিয়ে রাজ্য সরকারগুলির সঙ্গে আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী। ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে বিপর্যয়ের আগে কোন কোন উপায়ে সতর্ক থাকতে হবে বা বিপর্যয় সত্যিই নেমে এলে পরবর্তী সময়ে উদ্ধারকাজ চলবে কোন উপায়ে তা নিয়েই আলোচনায় মোদী।

ইতিমধ্যেই সাইক্লোন ‘তাওকতে’র কারনে সমুদ্র তীরবর্তী এলাকাগুলি ফাঁকা করা হয়েছে। নিরাপদ জায়গায় সরানো হয়েছে বাসিন্দাদের। উদ্ধারকাজ চালাতে প্রয়োজনী সরঞ্জাম গুছিয়ে নিয়ে ভুবনেশ্বর বিমানবন্দর থেকে রওনা দিয়েছেন NDRF-এর কর্মীরা।

শনিবার ভোর থেকেই কেরলের কোচির উপকূল থেকে শক্তি বাড়াতে শুরু করেছে ঘূর্ণিঝড় ‘তাওকতে’ ।মৌসম ভবন জানিয়েছে, শনিবার রাতে এটি আরও তীব্র ঘূর্ণিঝড় ঝড়ের আকার নেবে। একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে মৌসম ভবন জানিয়েছে, “১৬-১৯ মে পর্যন্ত এটি খুব মারাত্মক ঘূর্ণিঝড়ের আকার নেবে। ঝড়ের গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ১৫০-১৬০ কিলোমিটার। তীব্র ওই ঘূর্ণিঝড়ের গতিবেগ সর্বোচ্চ ঘণ্টায় ১৭৫ কিলোমটার পর্যন্ত পৌঁছোতে পারে।’’

এদিকে ভারতীয় নৌবাহিনীর জাহাজ, বিমান, হেলিকপ্টার, ছোট নৌকা এবং বিপর্যয় মোকাবিলা দলকে যে কোনও পরিস্থিতির জন্য তৈরি রাখা হয়েছে। প্রশাসনের নির্দেশে পূর্ণ সহযোগিতা করার জন্য তারা তৈরি বলে জানানো হয়েছে ভারতীয় নৌবাহিনীর তরফে।