ট্র্যাক্টর দিয়ে প্রায় ৩০ বিঘা জমির অবৈধ গাঁজা চাষ নষ্ট করল কোচবিহার কোতোয়ালি থানার পুলিশ

কোচবিহার, ২১ জানুয়ারিঃ বৃহস্পতিবার ফের ট্র্যাক্টর দিয়ে প্রায় ৩০ বিঘা জমির অবৈধ গাঁজা চাষ নষ্ট করল কোচবিহার কোতোয়ালি থানার পুলিশ।

এদিন সকালে কোচবিহারের ফলিমারি এলাকায় ওই গাঁজার চাষ নষ্ট করা হয়। এদিন ওই গাঁজা চাষ নষ্ট করার অভিযানের যান কোচবিহার কোতোয়ালি থানার পুলিশ।

জানা গেছে, বেশ কয়েকদিন আগে ওই চান্দামারি, মকপল ও ফলিমারি এলাকায় কোতোয়ালি থানার পুলিশ অভিযান চালিয়ে বেশ কয়েক বিঘা জমির গাঁজা নষ্ট করে দেয়।

সেই সুত্র ধরেই আজ ফলিমারি  এলাকায় কোতোয়ালি থানার পুলিশ অভিযান চালায়। অভিযান চালানোর সময় প্রকৃত জমির মালিকরা এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায় বলে জানা গিয়েছে। যদিও ওই অভিযান চালানোর সময় পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারে নি।

এদিন এবিষয়ে কোতোয়ালি থানার আইসি সৌমজিৎ রায় জানান, অবৈধ গাঁজা চাষের বিরুদ্ধে লাগাতার অভিযান শুরু করেছে কোচবিহার কোতোয়ালি থানা। আজ ফলিমারি এলাকার প্রচুর এলাকার জমিতে অবৈধভাবে গাঁজা চাষ হচ্ছে। সেই সমস্ত এলাকা চিহ্নিত করে ওই জমির গাঁজা গাছগুলিকে কেটে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিচ্ছে পুলিশ।

যার ফলে অবৈধ গাঁজা চাষের বিরুদ্ধে লাগাতার এই অভিযান চলায় কার্যত গাঁজা পাচারকারীদের সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে দাবি করছে কোচবিহার পুলিশ। গাঁজা পাচার বন্ধ করতে উৎপাদন বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুলিশ।

প্রশাসনের নজরে তা আসতেই অভিযান চালিয়ে এই গাছ গুলিকে কেটে পুড়িয়ে দেওয়া হয় পুলিশের পক্ষ থেকে। দুর্গাপুজোর পর থেকেই রীতিমত অনেক পরিমাণেই গাঁজা উদ্ধার করে চলছিল কোতোয়ালি থানার পুলিশ।কোতোয়ালি থানার অন্তর্গত একেক জায়গা থেকে গোপন সূত্রে তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার করতে সক্রিয় হয় পুলিশ।

পাশাপাশি এই গাঁজা পাচার কে রুখতে একেবারে গোড়া থেকে পদক্ষেপ নেওয়া শুরু করে প্রশাসন।কোচবিহার ১ নং ব্লকের বেশ কিছু অঞ্চলে বিগত দিনে অভিযান চালিয়ে গাঁজার চাষের জমি বিনষ্ট করে পুড়িয়ে দিচ্ছে পুলিশ।

মূলত, গাঁজা পাচার করার পর প্রাপ্ত অর্থ দিয়ে অবৈধ অস্ত্র কেনা হতো এবং আরো বেশ অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে টাকা গুলো জড়িত থাকার আশঙ্কা থাকে, এর আগেও অনেক গাঁজা পাচার হওয়ার মুহূর্তে গিয়ে তাদের পরিকল্পনা ভেস্তে দিয়ে পাচারকারী সহ গাঁজা উদ্ধার করে পুলিশ, অনেকগুলি চক্র এই পাচারের ক্ষেত্রে যুক্ত থাকে। ভোটের আগে নিরাপত্তা কে আরও সুনিশ্চিত করতে একেবারে গোড়া থেকে উদ্যোগ গ্রহণ করে এই ধরনের পদক্ষেপ বলে জানা যায়।

সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা কে আরো নিশ্চিত করতে এর আগেও সাধারণ মানুষ কে তৎপর থাকার আহ্বান জানিয়েছিলেন কোচবিহার জেলা পুলিশ।

পাশাপাশি কোতোয়ালি থানার যে এলাকা গুলোতে বৃহদায়তন জমিতে গাঁজার চাষ হয় সেগুলো প্রশাসনের পক্ষ থেকে এভাবে বিনষ্ট করে দেওয়া হবে জানান আইসি সৌম্যজিত রায়।