দুর্গাপূজা নিয়ে গাইডলাইন প্রকাশ কোচবিহার জেলা পুলিশের, মানতে হবে একাধিক নিয়ম

UBG NEWS, কোচবিহার, ১৩ অক্টোবরঃ দুর্গাপুজো নিয়ে গাইডলাইন প্রকাশ করল কোচবিহার জেলা পুলিশ। পুজো কমিটি গুলোকে নিয়ে কোচবিহারে সাধারণ সমন্বয় সভার মধ্য দিয়ে এই গাইডলাইন প্রকাশ করে জেলা পুলিশ।

আজ দুপুর ২.৩০ মিনিট নাগাদ জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে কোচবিহার পুলিশ লাইনের মাঠে অনুষ্ঠিত হয় এই সভা। জেলার বিভিন্ন প্রান্তের পুজো কমিটি গুলির সভাপতি, সম্পাদক ও সদস্যদের নিয়ে এই সভার আয়োজন করা হয়।

এদিন এই সভা মঞ্চ থেকেই পুজো কমিটি গুলোকে মূখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী-এর ঘোষিত অনুদান ৫০,০০০ টাকার চেক প্রদান করা হয়। এছাড়াও পুজো কমিটি গুলোকে পুজোর নিয়মাবলি প্রোজেক্টার স্ক্রীনে দেখিয়ে ভিসুয়াল পদ্ধতিতে বুঝিয়ে দেওয়া হয় জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে।

এই সভায় উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী বিনয় কৃষ্ণ বর্মণ, কোচবিহারের জেলাশাসক পবন কাদিয়ান, জেলা পুলিশ সুপার মহম্মদ সানা আক্তার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লালতু হালদার,  ডিএসপি হেড কোয়ার্টার সমীর পাল, ডিএসপি ট্রাফিক চন্দন দাস, কোচবিহার সরকারি মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান পার্থ প্রতিম রায়, জেলার মূখ্য সাস্থ্য আধিকারিক, কোচবিহার পৌরসভার প্রশাসক ভূষণ সিংহ, জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ আব্দুল জলিল আহমেদ সহ জেলার সমস্ত থানার আইসি, ওসি এবং জেলা পুলিশের অন্যান্য আধিকারিকরা।

এবার দুর্গাপুজোর গাইডলাইন অনুযায়ী, করোনা সংক্রমণ এড়াতে এবছর খোলামেলা প্যান্ডেল গড়তে হবে। যে প্যান্ডেলে প্রবেশ পথ ও বাহির পথ আলাদা হবে। স্বেচ্ছাসেবকদের অবশ্যই মাস্ক, গ্লাভস, স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে। রাস্তা আটকে কোনও ভাবেই প্যান্ডেল করা যাবে না। সর্বাধিক দুটি গাড়ি নিয়ে পুজো পরিক্রমা করা যাবে। পুজো পরিক্রমার ক্ষেত্রে ২-৪ জনের বেশি বিচারক থাকবে না। দূরত্ব মেনে পুজোর উদ্বোধন করতে হবে।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা যাবে না। প্যান্ডেলের সামনে অযথা ভিড় করা যাবে না। পুজো কমিটিগুলিকে করোনা নিয়ে সচেতনতামূলক প্রচার নিয়মিত করতে হবে। পুজো কমিটির পাশাপাশি দর্শনার্থীদের মাস্ক ও স্যানিটাইজার ব্যবহার বাধ্যতামূলক। তাদের জন্য স্যানিটাইজার ব্যবস্থা করবে পুজো কমিটিগুলো। ৬৫ বছরের বেশি বয়স্ক, গর্ভবতী বা যারা অসুস্থ তারা বাড়িতেই থাকবেন। একসঙ্গে ভিড় করে অঞ্জলি দেওয়া যাবে না। প্রসাদ বিতরণ বা নরনারায়ণ সেবা না করলেই ভালো। যদি করতে হয় খুব সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। যারা সেহুলি বিতরণকারী হ্যান্ড গ্লাভস, মাথায় টুপি, চামচ ব্যবহার করবেন। একসাথে সিঁদুর খেলা, ধুনুচি নাচ চলবে না। তবে দূরত্ব ও স্বাস্থ্য বিধি মেনে তা করা যেতে পারে। সিঁদুর দেওয়ার আগে হাত স্যানিটাইজ করতে হবে।

শোভাযাত্রার ক্ষেত্রেও বিধিনিষেদ আরোপ করা হয়েছে। বিসর্জনের শোভাযাত্রায় অল্প সংখ্যক মানুষ দূরত্ব মেনে সেখানে অংশ নেবেন। বিসর্জন ঘাটে জমায়েত করা যাবে না। শোভাযাত্রায় ডিজে নিষিদ্ধ। তবে ঢাক, কাসর চলবে। ১৫ জনের বেশি শোভাযাত্রায় থাকবে না। এছাড়াও অগ্নিকাণ্ডের মতো ঘটনা এড়াতে মন্ডপের ভিতর ধূমপান নিষিদ্ধ। অগ্নিনির্বাপণের প্রাথমিক ব্যবস্থা রাখতে হবে।

পাশাপাশি এদিন পুজো কমিটি গুলিকে স্পষ্ট জানানো হয়েছে, রাস্তায় যানবাহন আটকে চাঁদা তোলা যাবে না। এমনকী কারও থেকে জোর করে চাঁদা নিতে পারবে না পুজো কমিটি গুলি।