Ad
কোচবিহার

তবে কি ফের প্রত্যাবর্তন? বিজেপি বিধায়ক মিহির গোস্বামীর বাড়িতে তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি গিরিন্দ্র নাথ বর্মনের সাক্ষাৎ ঘিরে জল্পনা

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

ইউবিজি নিউজ : ‌বিজেপি বিধায়ক মিহির গোস্বামীর বাড়িতে তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি গিরিন্দ্র নাথ বর্মন।

কৃষ্ণ কল্যাণীর বিজেপি ত্যাগের পর জল্পনা বাড়ালেন আরও এক বিধায়ক। কোচবিহার নাটাবাড়ির বিজেপি বিধায়কের বাড়িতে তৃণমূলের জেলা সভাপতি।

Ad

এদিনের মিহির গোস্বামী ও গিরীন্দ্রনাথ বর্মনের সাক্ষাৎ ঘিরে জল্পনা। তবে দুজনের পক্ষ থেকেই এই সাক্ষাৎকারকে শুধুমাত্র সৌজন্য সাক্ষাৎকার বলেই দাবি করা হয়েছে। কিন্তু যে ভাবে একের পর এক বিজেপি বিধায়ক তৃনমূল কংগ্রেসে যোগ দিতে শুরু করেছেন, তাতে কিন্তু এই সাক্ষাৎকারকে শুধুমাত্র সৌজন্য সাক্ষাৎ বলে মানতে রাজি হচ্ছেন না রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

যদিও তৃনমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সভাপতি গিরীন্দ্রনাথ বর্মণ বলেন, “মিহিরদা আমার দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক অভিভাবক। আমি জেলা সভাপতি হওয়ার পর তাঁর সাথে দেখা করার সুযোগ হয় নি। তাই মাতৃপক্ষের শুরুতে তাঁর সাথে দেখা করতে এসেছি। এটাকে শুধু সৌজন্য সাক্ষাৎকার বলা যেতে পারে। উনি বড় মাপের নেতা। ওনাকে দলে যোগ দেওয়ার আবেদন দিতে হলে ওনার মাপের কেউ দেবেন।” প্রায় একই সুরে মিহির গোস্বামী বলেন, “আজই কোলকাতা থেকে ফিরেছি। সকালেই গিরীন বাবু ফোনে আমার সাথে সাক্ষাৎকার ইচ্ছে প্রকাশ করেন। আমি তাঁকে বাড়িতে আসার জন্য বলি। দুজনের মধ্যে শুধুমাত্র সৌজন্য সাক্ষাৎ হয়েছে। তার বাইরে কিছু নয়।”

কোচবিহারে দীর্ঘদিনের তৃণমূল কংগ্রেস নেতা ছিলেন মিহির গোস্বামী। তৃণমূল কংগ্রেস থেকে বিধায়ক পদেও ছিলেন। তৃণমূলের কোচবিহার জেলা রাজনীতিতে রবীন্দ্রনাথ ঘোষের সমকক্ষ নেতা হিসেবেই গণ্য করা হত তাঁকে। কিন্তু ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে মিহির গোস্বামীর সাথে তৃণমূল কংগ্রেসের তৎকালীন জেলা নেতৃত্বের দূরত্ব তৈরি হয়। শেষ পর্যন্ত বিজেপিতে যোগ দেন মিহির বাবু। তাঁকে কোচবিহার জেলা নাটাবাড়ি বিধানসভা কেন্দ্রে পদ্মফুল প্রতীকে প্রার্থী করা হয়। তৃণমূল প্রার্থী রবীন্দ্রনাথ ঘোষকে পরাজিত করে জয়ী হন মিহির গোস্বামী। কিন্তু তৃণমূল তৃতীয় বারের জন্য রাজ্যের ক্ষমতায় আসে। এরপরেই এক এক করে বিজেপি বিধায়কদের তৃনমূলে প্রত্যাবর্তন শুরু হয়। এবার সেই তালিকায় কি মিহির গোস্বামীর নামও থাকবে কিনা, তা জানতে কিছুটা সময়ের অপেক্ষা তো করতেই হবে।

আরও পড়ুন