বিজেপি ঘোষিত নারায়নী রেজিমেন্টের কোনো তথ্য নেই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে, কোচবিহারে পার্থর তোপের মুখে বিজেপি সাংসদ

কোচবিহার, ২১ জানুয়ারিঃ সেনাবাহিনীতে নারায়ণী রেজিমেন্ট গড়ে তোলা নিয়ে কোচবিহারের বিজেপি সাংসদ মানুষের সাথে প্রতারণা করছে বলে অভিযোগ তুললেন তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সভাপতি পার্থ প্রতিম রায়।

আজ পার্থ বাবু সংবাদ মাধ্যমে অভিযোগ করে জানান, ধুবরি ল কলেজের অধ্যাপক উদয় রঞ্জন রায় প্রধানি কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা দফতরে আরটিআই করে জানতে চান ভারতীয় সেনা বাহিনীতে নারায়ণী রেজিমেন্ট কোন রেজিমেন্ট গড়ে তোলার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে কি না? কিম্বা গড়ে তোলার কোন সম্ভবনা আছে কিনা? সম্প্রতি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক সেরকম কোন উদ্যোগ বা সম্ভবনা যে নেই তা স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন।

এদিন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের সেই আরটিআইয়ের উত্তর স্যোসাল মিডিয়ায় ব্যাপক ভাবে ভাইরাল হয়েছে। শুধু তাই নয়, সম্প্রতি সাংসদ নিশীথ প্রামাণিকের জন্মদিন পালন করা হয়। ওই জন্মদিনের দিন নিশীথ সেনা লেখা একটি টিশার্ট নিয়ে ছবি পোস্ট করা হয়। সেই পোস্ট নিয়ে একটি বাংলা সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশ করা হয়। নারায়ণী সেনা নিয়ে আরটিআইয়ের সেই চিঠি ও নিশীথ সেনা টি শার্টের খবর এক সাথে ফেসবুকে পোস্ট করে অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন। নারায়ণী রেজিমেন্টের প্রতিশ্রুতি দিয়ে কোচবিহার কেন্দ্র থেকে সাংসদ হওয়ার পর এখন নিশীথ সেনার প্রচার কেন করছেন সাংসদ ?

তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সভাপতি পার্থ প্রতিম রায় বলেন, “বিজেপি যে মিথ্যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় আসার চেষ্টা করে, মানুষকে বোকা বানানোর চেষ্টা করে, সেটা বারবার প্রমাণ হয়ে যাচ্ছে। গত লোকসভা নির্বাচনের আগে সেনা বাহিনীতে কোচবিহার রাজার সেনাবাহিনীর নামে নারায়ণী রেজিমেন্ট গড়ে তোলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এখানকার মানুষ আশা করেছিলেন সেই রেজিমেন্টে স্থানীয় বেকার যুবকরা চাকরি পাবেন। কিন্তু সেটা যে পুরোপুরি ভাওতা ছিল, সেটা প্রমাণ হয়ে গেল। এভাবে মানুষের সাথে প্রতারণা করে বেশীদিন ক্ষমতায় থাকা যায় না।”

এদিকে কোন প্রতিশ্রুতি না দিয়েও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্থানীয় মানুষের ভাবাবেগকে গুরুত্ব দিয়ে ইতিমধ্যেই পুলিশে নারায়ণী ব্যাটেলিয়ন করে দিয়েছেন, এদিন সেকথাও উল্লেখ করেন পার্থ বাবু। ওই ব্যাটেলিয়নের মুখ্য দফতর হচ্ছে কোচবিহারের মেখলিগঞ্জে। সেটার কাজও শুরু হয়ে গিয়েছে বলেও জানান তিনি।

কোচবিহার রাজার সেনার নাম ছিল নারায়ণী সেনা। ভারতের সাথে যুক্ত হওয়ার পর সেই সেনাবাহিনী উঠে যায়। আর সেই কারণে ভারতীয় সেনা বাহিনীতে নারায়ণী সেনা নামে একটি রেজিমেন্ট গড়ে তোলার দাবি দীর্ঘ দিন থেকে উঠে আসছে। গত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির প্রচারে যা অন্যতম হাতিয়ার হয়ে উঠেছিল।

কিন্তু লোকসভা নির্বাচনের দেড় বছর বাদে সেই রেজিমেন্ট গড়ে ওঠার কোন সম্ভাবনা নেই বলে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক জানিয়ে দেওয়ার পর আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে স্থানীয় মানুষের কাছে বিজেপিকে যে প্রশ্নের মুখে পড়তে হবে, তা বলাই বাহুল্য। এবার বিজেপি তার উত্তর নিয়ে নির্বাচনী ময়দানে নামে, এখন সেটাই দেখার।