দিনভর চেষ্টার পর অবশেষে বনদপ্তর কর্মীদের দুঃসাহসিক প্রচেষ্টায় ধরা পড়ল বাঘ, স্বস্তিতে কোচবিহার বাঘ মারার বাসিন্দারা

কোচবিহার:: দিনভর চেষ্টার পরে অবশেষে বনদপ্তর কর্মীদের দুঃসাহসিক প্রচেষ্টায় ধরা পড়ল চিতাবাঘ।সকাল থেকে এলাকায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছিল বাঘটি। চিতা বাঘের হামলায় অল্পের জন্য রক্ষা পায় এক পুলিশ কর্মী ।

অবশেষে বনদপ্তর কাবু করতে সক্ষম হলো বাঘটিকে। বর্তমানে বাঘটিকে চিলাপাতার উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ঘটনায় বনদপ্তর এর একজন কর্মী গুরুতর ভাবে আহত হয়েছেন বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়। তার মাথার উপর দিয়ে বাঘ ঝাঁপিয়ে পড়ে।

টানা ৬ ঘণ্টার চেষ্টায় ঘুম পাড়ানি ইঞ্জেকশন দিয়ে চিতা বাঘটিকে কাবু করতে সক্ষম হল বন দফতর। আজ সকাল থেকে কোচবিহার ১ নম্বর ব্লকের বাঘমারা ও কাটামারি গ্রামে দাফিয়ে বেড়াচ্ছিল একটি চিতা বাঘ। খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে গেলে বাঘের থাবায় এক পুলিশ কর্মী আহত হয়। এছাড়াও সেখানকার এক স্থানীয় বাসিন্দা ওই চিতা বাঘের থাবায় আহত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

বুধবার সারা দিন কোচবিহার সদর ১ নম্বর ব্লকের তাপুরহাট থেকে শুরু করে চিলকির হাট চান্দামারী পর্যন্ত দাপিয়ে বেড়িয়েছে তিনটি বাইসন। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে পুনরায় চিতা বাঘের আতঙ্ক দেখা দিল এলাকায়।

সকালবেলা কোচবিহার ১ নম্বর ব্লকের সাতমাইল এলাকার কাঁটামারী গ্রাম পঞ্চায়েতে স্থানীয় বাসিন্দারা একটি মাঝারি আকারের চিতাবাঘ দেখতে পায় বলে শোরগোল ওঠে।

স্থানীয় বাসিন্দা মোকসেদুল মিয়া, রাজিব বর্মন বলেন সকাল সাত টা নাগাদ বাঘের গর্জন শোনা যায় এলাকায়।তারা বেরিয়ে দেখে পার্শ্ববর্তী বাঁশঝাড়ের পেছনদিকে থেকে ছুটে চলে যাচ্ছে একটি চিতাবাঘ। বিষয়টি জানাজানি হতেই চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। এলাকায় উপস্থিত হয় বনদপ্তর আধিকারিকরা। শেষ বেলায় বিকেল পাঁচটা নাগাদ বাঘটিকে কাবু করতে পেরেছিল বনদপ্তর। চিতাবাঘটিকে চিলাপাতা জঙ্গলে ছেড়ে দেওয়া হবে বলে জানাযায় ।

স্থানীয় বাসিন্দা তথা সাত মাইল সতীশ ক্লাবের অন্যতম কর্মকর্তা অমল রায় বলেন, “সকাল থেকে ওই বাঘটিকে এলাকায় দেখা যাচ্ছিল। ফলে গ্রাম বাসিদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছিল। পুলিশ ও দফতরের কর্মীরা এসে শেষ পর্যন্ত চিতাটিকে ঘুম পাড়ানি ইঞ্জেকশন গুলি করে ছুড়ে বেহুশ করে দেয়। গ্রাম বাসিরাও তাতে সহযোগিতা করেছিল।”

প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে পাতলাখাওয়ার জঙ্গল থেকে বের হয়ে লোকালয়ে চলে এসেছিল ওই চিতাটি। সুস্থ করার পর চিতাকে আবার জঙ্গলে ছেড়ে দেওয়া হবে বলে বন দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে।