কোচবিহার দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূলের প্রার্থী হলেন অভিজিৎ দে ভৌমিক

কোচবিহার, ৫ মার্চঃ ছাত্র সংগঠনের হাত ধরে কোচবিহারের রাজনৈতিক অঙ্গনে উঠে এসেছিলেন অভিজিৎ দে ভৌমিক। দীর্ঘ সময় ছাত্র পরিষদের দায়িত্বে ছিলেন।

বাম আমলেও কোচবিহার শহরের একাধিক কলেজে সংসদ দখল করে রেখেছিলেন তিনি। এরপর যুব কংগ্রেসের পদ সামলেছেন। সেখান থেকে সরাসরি তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার কিছু দিনের মধ্যে তৃণমূল যুব কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয় তাঁকে। সেই দায়িত্ব পাওয়ার পর নিজস্ব কায়দায় সংগঠন বাড়ানোর কাজ করে বারবার সংবাদ মাধ্যমের শিরোনামে উঠে আসতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। এবার একুশের বিধানসভা নির্বাচনে তাঁকে প্রার্থী করল তৃণমূল কংগ্রেস।

কোচবিহার দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্র থেকে জোড়া ফুল চিহ্নে প্রার্থী হলেন তিনি। ওই কেন্দ্র থেকে গত বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হয়ে জয় পেয়েছিলেন মিহির গোস্বামী। এবার তিনি পদ্ম শিবিরে যোগ দিয়েছেন। বিজেপি ওই কেন্দ্র থেকেই তাঁকে প্রার্থী করতে পারে বলে খবর রয়েছে। আর সেই কারণে কোচবিহার দক্ষিণ কেন্দ্রে একজন লড়াকু নেতার খোঁজে ছিল তৃণমূল কংগ্রেস। আর যথার্থ ভাবে অভিজিৎ দে ভৌমিক (হিপ্পি)কেই বেছে নেন তৃণমূল সুপ্রিমো।

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের নিরিখে কোচবিহার দক্ষিণ কেন্দ্রে গ্রামাঞ্চলে থাকা ৯ গ্রাম থেকে লিড নিতে পারলেও শহরে এসে পিছিয়ে পড়ে তৃণমূল কংগ্রেস। এবার অভিজিৎ দে ভৌমিক প্রার্থী হওয়ায় শহরাঞ্চলে তাঁর কিছুটা হলেও ব্যাক্তিগত সংগঠন কাজ করবে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে শহরে দলের অভ্যন্তরে তাঁর বিরোধী শিবিরও রয়েছে। ভোট যুদ্ধে নেমে তাঁদের কতটা আপন করে নিতে পারেন, এখন সেটাই দেখার।