কোচবিহারে রাস্তার কুকুরের উপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে আক্রমণ যুবকের

ইউবিজি নিউজ, কোচবিহার : আজ ৮ই ডিসেম্বর, ২০২০ গোটা ভারতবর্ষ জুড়ে কৃষকেরা কৃষি আইনের বিরোধিতা করে বনধ ডেকেছে। এছাড়াও গতকাল শিলিগুড়ি শহরে বিজেপির উত্তরকন্যা অভিযানে পুলিশ ও বিজেপি সমর্থকদের মধ্যে সংঘটিত ব্যাপক সংঘর্ষের কারনে এক বিজেপি সমর্থকের মৃত্যুকে ঘিরে বিজেপির ডাকা গোটা উত্তরবঙ্গ বনধ একপ্রকার সমস্ত জনজীবন কে প্রায় স্তব্ধ করে দেয়।

সকাল থেকে শহরের বিভিন্ন রাস্তায় বেশ সক্রিয় ভাবে দেখা যায় বিভিন্ন বনধ সমর্থন কারীদের দোকান ও অফিস বন্ধ করতে। এছাড়াও কোচবিহার ও তুফানগঞ্জে বাস ভাঙচুর সহ কিছু জায়গাতে রাস্তায় গাড়ির টায়ার জ্বলতে দেখা যায়। এছাড়াও পুলিশের ভূমিকা কোন অংশে কম ছিল না আজ।

এই বনধ চলাকালীন যাতে শহরে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেই বিষয়েও পুলিশের কড়া নজরদারি লক্ষ্য করা যায় এবং কয়েকজন বনধ সমর্থকদের আটক করেছে পুলিশ। তবুও এরই মধ্যে কোচবিহারের ঘটে গেল একটি অপ্রীতিকর ঘটনা।

মানুষেরা যেখানে করোনা ভাইরাস অতিমারির কারনে লকডাউন চলাকালীন সময়ে বিভিন্ন পশুদের প্রতি তাদের পশুপ্রেম দেখিয়েছে। সেই মানুষই মাঝে মাঝে পশুদের উপর এমন নির্মম ভাবে অত্যাচার চালায় এবং তাদের আক্রান্ত করে। তারই চাক্ষুস নিদর্শন পাওয়া গেল আজ কোচবিহার শহরের ১০ নম্বর ওয়ার্ডের জামাই বাজার সংলগ্ন এলাকাতে।

এই এলাকায় এক স্থানীয় মুরগীর মাংসের দোকান রয়েছে। এই দোকানের মালিকের নাম মকসিদুল হক। মাংসের দোকান হওয়ার কারনে মাংসের উচ্ছিষ্ট আবর্জনা মাঝে মাঝে দোকানের আশে পাশে পড়ে থাকতে দেখা যায়। আর সেই উচ্ছিষ্ট খেতে কিছু রাস্তার কুকুর আসতে।

আজও সেইমত একটি কুকুর দোকানের কাছে আসলে সেই কুকুরটির দিকে তেড়ে যান দোকানের মালিক মকসিদুল হক্। তিনি তার হাতে থাকা মাংস কাটার ছুরি দিয়ে কুকুরটির পিঠে কোপ বসান আর সঙ্গে সঙ্গে কুকুরটির পিঠের মাঝ বরাবর গভীর ক্ষতের সৃষ্টি হয় ও প্রচুর রক্ত পাত ঘটে কুকুরটির।

কুকুরটির আওয়াজে পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন বেশ কিছু স্থানীয় বাসিন্দা, আর দোকান মালিকের সাথে শুরু হয় তাদের বচসা। তারপর কিছুক্ষন বাদে ঘটনাস্থলে কোচবিহারের এক এন.জি.ও সংস্থা পৌছলে কুকুরটির ওপর আক্রমন চালানো সেই মুরগীর দোকানের মালিককে তারা পুলিশের হাতে তুলে দেয়। কিছুক্ষনের মধ্যেই তারা কুকুরটিকে স্যালাইন লাগিয়ে দেয়। এছাড়াও তারা কুকুরটির যথাযথ চিকিৎসার ব্যাবস্থ গ্রহণ করেছে।

ঘটনায় অভিযুক্ত একজনকে গ্রেপ্তার করেছে কোচবিহার কোতোয়ালি থানার পুলিশ।