Ad
কোচবিহার

মাথাভাঙ্গা ২ নং ব্লকের ঘোকসাডাঙা অঞ্চলের প্রধানের বিরুদ্ধে কাটমানি খাওয়ার অভিযোগ, থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

অভিষেক দে,ঘোকসাডাঙা : মাথাভাঙ্গা দু নং ব্লকের ঘোকসাডাঙা অন্চলের প্রধানের বিরুদ্ধে কাটমানি খাওয়ার অভিযোগ তুলে থানায় অভিযোগ দায়ের স্থানীয় এক যুবকের ।মুলত জমি দখল কে কেন্দ্র করে এই ঘটনা,

জানা গেছে ঘোকসাডাঙ্গা অঞ্চলের ছোট শিমুলগুড়ি 73 নম্বর বুথের বাসিন্দা গৌতম দাস ,তিনি অভিযোগ করেন, তার মা বাসন্তী দাস প্রায় 65 বছর বয়সে , নিজ গৃহে 10 ই ডিসেম্বরের 2020 দুপুরে পরলোকগমন করেন, কিন্তু ঘোকসাডাঙ্গা অঞ্চলের প্রধান, বিপুল অর্থ নিয়ে একটি ভুয়া ডেট সার্টিফিকেট তৈরি করে তার এক আত্মীয়ের হাতে দেন। যেখানে উল্লেখ 25 শে নভেম্বর অভিযোগকারী গৌতম দাসের মাথা মারা যায় এবং মৃত্যুকালীন বয়স দেখা যায় 42 বছর ।

Ad

আরো অভিযোগ করেন কিভাবে কোন ডকুমেন্ট না দেখে প্রধান এইভাবে একটা ডেট সার্টিফিকেট তৈরি করলেন কিভাবে এবং তার পুত্রকে না দিয়ে অন্য কাউকে কিভাবে ডেট সার্টিফিকেট দিয়ে দিতে পারেন ।

এছাড়া গৌতম দাস এর অভিযোগ, তার মার জমি এবং মৃত্যু সংশয় পত্র সহ প্রয়োজনীয় সম্পত্তি কাগজপত্র তার মাসি (গৌতম এর মা এর বোন) ভুয়া সংশয় পত্র দেওয়া নিয়ে নিচ্ছে এবং তারা চক্রান্ত করে গৌতম দাস কে পুত্র না, প্রমান করবার চেষ্টা করছে ।

যদিও এ বিষয়ে ঘোকসাডাঙ্গা অঞ্চলের প্রধান তার উপরে ওঠা সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন এবং
সমস্ত অভিযোগ মিথ্যা, তাকে কালিমালিপ্ত করার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানান । ঘোকসাডাঙ্গা অঞ্চলের প্রধান দীপ্তি বর্মন জানান, যদি তিনি কাটমানি খেয়ে থাকেন তাহলে উপযুক্ত প্রমান দেখাতে, বর্তমানে বিরোধীদের সহযোগিতা নিয়ে চক্রান্ত করে প্রধানের নামে বদনাম করা হচ্ছে ।

এছাড়া প্রধান আরো জানান , অভিযোগকারী গৌতম দাস বাসন্তী দাসের পুত্র না, তৎ সঙ্গে, বাসন্তী দাসের কোনো সন্তান নেই । স্থানীয় বাসিন্দারা নাকি এমনটাই জানিয়েছেন এলাকার প্রধান কে ।।

দীপ্তি বর্মন বিস্ফোরক ভাবে জানান যদি সেই মহিলা যদি নিজ গৃহে মারা যায় তাহলে ডাক্তারের সার্টিফিকেট অন্য জেলা , ফালাকাটার কিভাবে যেটা আলিপুরদুয়ার জেলার অন্তর্গত । অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে, সরগরম হয়ে উঠেছে এলাকার রাজনৈতিক মহল ।

অন্যদিকে লক্ষ করা যায়, বাসন্তী দাসের বোন, মিনতি দাস, যিনি গৌতম দাসের মাসি তিনি একই দিনে একটি জমি বিক্রয় এবং ক্রয় করেন দুটো জায়গায় দু’রকম পদবী লক্ষ করা যায় ।।

এ বিষয়ে মন্তব্য করতে ছাড়েনি তৃণমূল কংগ্রেস, তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব জানায়, বিজেপির প্রধানের বিরুদ্ধে কাটমানি খাওয়ার অভিযোগ আমরা শুনেছি, এ বিষয়ে প্রশাসন ব্যবস্থা গ্রহণ করবে আশা রাখছি। ঘোকসা ডাঙ্গা অঞ্চলের ৯ বুথ বিজেপির দখলে, তৃণমূলের দখলে পাঁচটি, যে কারণে তৃণমূল অঞ্চলে কোন রকম কাজ কর্ম করতে পারছে না। একটি অঞ্চলে কাটমানি খাওয়া কোনভাবেই বরখাস্ত করে না তৃণমূল কংগ্রেস। তৎ সঙ্গে বিজেপির দখলে থাকা ৯ টি বুথ থেকে দুর্নীতির অভিযোগ আসছে বলে দাবী তৃণমূল নেতৃত্বের ।।

এ বিষয়ে প্রধান এবং উপপ্রধান এর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ জমা করেছে । যদিও প্রধান দীপ্তি বর্মন অভিযোগের বিষয়টি জানেন না বলে জানিয়েছেন । তবে প্রধান তার বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করে সে গুলোকে মিথ্যা অভিযোগ বলেছেন । এবং জানিয়েছেন যদি তার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করা হয় তাহলে সে বিষয়টি নিয়ে তিনি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলবে ।।

আরও পড়ুন