ads

দিদি বাচ্চাদের মতো আচরণ করছে, কোচবিহারের রাসমেলা ময়দানে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে বললেন নরেন্দ্র মোদী | UBG NEWS



UBG NEWS, কোচবিহার : “দিদি বাচ্চাদের মতো আচরণ করছে”। রবিবার কোচবিহারের রাসমেলা মাঠে দলীয় প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিকের সমর্থনে সভা মঞ্চে দাড়িয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে এমনই ভাবে কটাক্ষ করলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এদিন সকালে তিনি দিল্লি থেকে বিশেষ বিমানে হাসিমারা এয়ারফোর্স বেসে নামেন সেখান থেকে চপারে করে কোচবিহার বিমানবন্দরে নেমে সড়কপথে রাসমেলা ময়দানে কোচবিহারের লোকসভা কেন্দ্রের দলীয় প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক ও আলিপুরদুয়ার লোকসভা কেন্দ্রের দলীয় প্রার্থী জন বার্লার সমর্থনে সভায় যোগ দেন। সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন, “দিদির বিনাশের স্মারক দাঁড়িয়ে রয়েছে৷ সামনে দিদির মঞ্চ দিয়ে কী নির্বাচন জেতা যায়৷ দিদি এবং তাঁর গোলামরা নাটক করছে৷ বাচ্চাদের মতো আচরণ করছে৷ কিন্তু তাদের এত বাধা সত্ত্বেও জনগণের উৎসাহ দেখে আমি অভিভূত।” পাশপাশি তিনি বলেন, “২০২২-এর মধ্যে প্রত্যেকের কাছে নিজেদের পাকা বাড়ি হোক, এটা আমার স্বপ্ন৷ এর জন্য পশ্চিমবঙ্গে ইতিমধ্যে ১৩ লক্ষ বাড়ি তৈরী করেছে এই চৌকিদার। কিন্তু দিদি সেই কাজে স্পিডব্রেকার হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে৷ আর তাই অনেকেই এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত৷ তাই দিদিকে উচিত শিক্ষা দিতে পশ্চিমবঙ্গে পদ্ম বেশি সংখ্যায় ফোটাতে হবে৷ দিল্লিতে আপনাদের আওয়াজ পৌঁছতে এই কাজ করতে হবে৷ দিদিকে আপনাদের ভালোর জন্য মাথা নোওয়াতেই হবে৷”

এদিন ওই সভা মঞ্চ থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে বলেন, “দিদির আসল চেহারা বিশ্বের সামনে নিয়ে আসা জরুরি৷ কিন্তু দিদি রাজ্যের সংস্কৃতি, গৌরব, নাগরিকদের জীবন ধ্বংস করার চেষ্টায়৷ কেন রাজ্যে সপ্তম বেতন কমিশন লাগু হচ্ছে না, তার কারণ কী দিদি বলেছে আপনাদের? কেন পরীক্ষায় পাশ করেও চাকরি পাচ্ছে না যুবক-যুবতীরা? কেন চা-বাগানে সমস্যা? এসবের উত্তর কী দিদি দিয়েছে?”

এদিন সারদা-নারদা-রোজভ্যালি নিয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে তীব্র আক্রমণ করে তিনি বলেন, “সারদা-নারদা-রোজভ্যালিতে সব টাকা লুঠেছে। এক-এক টাকার হিসেব নেবে এই চৌকিদার। কেন সপ্তম বেতন কমিশনের সুপারিশ লাগু হচ্ছে না সে নিয়েও প্রশ্ন তোলেন মোদী। বাংলায় যুবকদের চাকরি হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন তিনি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গের ‘স্পিড ব্রেকার দিদি’ রাতে ঘুমোতে পারছেন না”। সভা মঞ্চ থেকে পিসি-ভাইপোর জোড়ি নিয়ে মমতাকে তীব্র আক্রমণ করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ‘পিসি-ভাইপো জোড়ি রাজ্যকে অনুপ্রবেশকারীদের স্বর্গরাজ্যে পরিণত করেছে’ বলে তোপ দাগেন প্রধানমন্ত্রী৷ মোদীর কথায়, বাংলার সমস্যার অন্যতম কারণ অনুপ্রবেশ৷ ক্ষমতায় এলে অনুপ্রবেশকারীদের রেহাই মিলবে না বলে এদিন হুঁশিয়ারি দেন তিনি৷ বিরোধী জোটের অন্যতম মুখ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ মোদীকে ক্ষমতা চ্যূত করতে মরিয়া তিনি৷ তৃণমূল সুপ্রিমোর মুখে প্রায়ই শোনা যায়, ‘মোদী হঠাও দেশ বাঁচাও’৷ মমতার ওই স্লোগানের কটাক্ষ করে মোদী বলেন, “বিজেপির প্রতি মানুষের সমর্থন বাড়ছে৷ যা দিদির রাগের কারণ৷ দিদি নির্বাচন কমিশনের উপর রাগ দেখাচ্ছে৷ আয়নায় নিজের ভবিষ্যৎ দেখতে পাচ্ছেন উনি৷ তাই রাতে ঘুমোতে পারছেন না দিদি”।" কেন্দ্রের সব প্রকল্পের উপর স্পিডব্রেকার লাগাচ্ছেন দিদি। নাহলে এতদিনে আপনারা সেই সুবিধা পেয়ে যেতেন।" সভা মঞ্চ থেকে তিনি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কড়া চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেন, এখানকার জনসমুদ্র দেখে নিন। দিদি দেখে নিন। দিল্লিতে বসা লোকেরাও দেখে নিন। বিজেপি কে দেওয়া প্রতিটি ভোট চৌকিদারের খাতায় যাবে। আপনাদের প্রতিটি ভোট চৌকিদারকে শক্তিশালী করবে। কাউকে ভয় পাবেন না। বাংলার গুন্ডাগিরি বা তোলাবাজি আর চলবে না। জলপাইগুড়িতে কলকাতা হাইকোর্টের সার্কিট বেঞ্চ করে দিয়েছি। দিদি তো রেলমন্ত্রী ছিলেন। তিনি কী করেছেন?

কোচবিহারের ট্যুরিজম প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, কোচবিহারে টুরিজ়মের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। সেখানেও দিদি স্পিডব্রেকার লাগানোর চেষ্টা করেছেন। অসমে এন আর সি চালু প্রসঙ্গে তিনি বলেন, অনুপ্রবেশকারীদের আটকানোর জন্য এন আর সি চালু করেছি। নিজের ভোটব্যাঙ্কের স্বার্থে দিদি অনুপ্রবেশকারীদের রক্ষার চেষ্টা করছেন । দিদি রাজ্যের মানুষকে গুন্ডাদের হাতে তুলে দিয়েছেন। আর তার মধ্য দিয়ে মানুষের ভরসা ভেঙে দিয়েছেন। দিদি যখন ক্ষমতায় এসেছিলেন, তখন ভাবতেই পারিনি দিদি এরকম কাজ করবেন। দিদি বাম সরকারের সব অনৈতিক কাজকে গলা মিলিয়ে নিয়েছেন। দিদি এখানে শর্টকাট পন্থা বেছেছেন। ত্রিপুরাতেও বাম সরকার এরকম করত। বাংলাতেও এরকম হচ্ছে। চা বাগানের শ্রমিকদের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, চা-বাগান শ্রমিকদের স্বাস্থ্য প্রকল্প কেন আটকাছেন দিদি? তা তিনি বলতে পারবেন । প্রসঙ্গত, লোকসভা ভোট উত্তরবঙ্গের আটটি আসনে নজর বিজেপি-র। তাই মোদিকে দিয়ে প্রচারে বাজিমাত করতে চাইছে তারা। তারই অঙ্গ হিসেবে কোচবিহার কেন্দ্রের প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক ও আলিপুরদুয়ার কেন্দ্রের প্রার্থী জন বার্লার সমর্থনে আজ জনসভা করেন মোদি।তাঁর দাবি, রাজ্য অরাজকতা চলছে। "পশ্চিমবঙ্গের বুয়া-ভাতিজা জুটি রাজ্যকে গুন্ডা, তোলাবাজদের গড় বানাতে উঠেপড়ে লেগেছে।" এদিনের এই সভা সেখানে উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের বিজেপির পর্যবেক্ষক কৈলাশ বিজয়বর্গীয়, রাজ্যসভার সাংসদ রুপা গাঙ্গুলি, বিজেপি নেতা মুকুল রায়, বিজেপির জেলা সভানেত্রী মালতী রাভা সহ আরও অনেকে। এদিন কোচবিহার রাসমেলা মাঠে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। লক্ষাধিক মানুষ ভিড় করেন সেখানে। এমনিতেই কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূল ও বিজেপির হাড্ডাহাড্ডি লড়াই রয়েছে। তার উপর এদিনের সভায় মোদি যেভাবে বিরোধীদের আক্রমণ করেছে এবং ভিড়ের যে ছবি দেখা গিয়েছে তাতে বিজেপি নেতৃত্ব বাড়তি অক্সিজেন পেল বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

Post a Comment

0 Comments