ads

প্রশাসনের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ জানালেন কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামানিক | UBG NEWS



UBG NEWS, কোচবিহার : জেলা প্রশাসন দলদাসে পরিণত হয়েছে। এই অভিযোগ তুলে পর্যবেক্ষকের সাথে দেখা করে প্রশাসনের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ জানালেন কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক।

এদিন তিনি অভিযোগ জানিয়ে বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অভিযোগ গুলি সম্পর্কে নির্বাচন কমিশন যদি কোন রকম পদক্ষেপ গ্রহণ না করে তাহলে বুধবার থেকে অনির্দিষ্টকালের অবস্থান শুরু করবে জেলা বিজেপি। তিনি আরও বলেন কোচবিহার জেলা শাসক ও জেলা পুলিশ সুপার রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের দাসত্ব করছে। তারা বিজেপির বিভিন্ন সভা-সমিতি অনুমতি দিচ্ছেন না। যদিও কোন রকম ভাবে দেওয়া হলেও স্থানীয় কর্মীদের নানাভাবে হেনস্থা করা হচ্ছে, তাদের সভাতে আসতে বাধা দেওয়া হচ্ছে পুলিশ প্রশাসন থেকে।কখনো হুমকি দেওয়া হচ্ছে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়া হবে আবার কখনো থানায় নিয়ে যাওয়ার হুমকি দিচ্ছে প্রশাসন। সেই সাথে তিনি আরো বলেন পুলিশ কর্মীদেরও নিজেদের পরিবার আছে, তাদেরও হুমকির সামনাসামনি হতে হচ্ছে। তাদের বদলি করে দেওয়ার হুমকি দিচ্ছে ওপর মহল। তাই তাদের কিছু করার নেই। এই একনায়কতন্ত্র বন্ধ হোক। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কোচবিহার সফর কে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর তিনবার আসুন বা যতবার খুশি আসুন। কোচবিহারে তৃণমূল কংগ্রেস জিততে পারবে না। তাই প্রশাসনকে চাপ সৃষ্টি করে বিজেপির প্রচারে বাধা দিচ্ছে তৃণমূল। প্রশাসন ও পুলিশের কয়েকজন আধিকারিক এর নাম উল্লেখ করে তাদের বিরুদ্ধে এদিন নির্বাচন পর্যবেক্ষকের কাছে দল দাসত্ব করার অভিযোগ জানিয়েছে বিজেপি।

সূত্রের মধ্যমে জানানো হয়েছে, জেলা মুখ্য নির্বাচন আধিকারিক তথা জেলা শাসক কৌসিক সাহা ও জেলা আরক্ষাধ্যক্ষ অভিষেক গুপ্তার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেছেন নিশীথ।

মুখ্যমন্ত্রী প্রসঙ্গে নিশীথ বলেন – মুখ্যমন্ত্রী ঢপ দিয়েই হোক বা চুড়ি করেই হোক রাজ্যে উন্নয়ন কিছু করেছেন, কিন্তু তার ভাই, ভাইপো ও কিছু লম্বা চওড়া নেতার কারনেই আজ তৃনমূল ধংসের মুখে। জেলা তৃনমূল সভাপতি রবিন্দ্র নাথ ঘোষকেও এদিন এক হাত দিলেন নিশীথ। তার কথায় দিনহাটাতে সভা করতে আসছেন মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী। সেই সভাতে তার ভাইয়েরা মাঠ টা ভড়িয়ে দেখাক ভয় ও হুমকি না দিয়ে। আগে নিজেদের ঘড়টা সামাল দিক, তার পরে না হয় মানুষের কথা ভাববেন বাকি কথা ২৩ শে মে র পরে হবে।

Post a Comment

0 Comments