ads

এই চৌকিদারের কর্মকান্ডে দিদি ও তার অনুগামীরা বিরক্ত : প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ।UBG NEWS

UBG NEWS, শিলিগুড়ি : শিলিগুড়ির কাওয়াখালীতে বুধবার প্রধানমন্ত্রীর জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে । আজকের এই জনসভায় কাতারে কাতারে মানুষ উপস্থিত হয়ে জনসভাকে জনবহুল করে তোলে ।

ভাষণ দিতে উঠে প্রধানমন্ত্রী প্রথমে সবাইকে অভিবাদন জানান ,এরপরে তিনি নিজেকে দেশের ও জনতার চৌকিদার বলে উল্লেখ করেন । বাংলার উন্নয়নের পেছনে তিনি রাজ্যের তৃণমূল সরকার তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি কে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেন ।তিনি মমতা ব্যানার্জি কে বাংলার উন্নয়নে স্পিড ব্রেকার বলে সম্বোধন করেন । তিনি জানান বাংলায় এই স্পিড ব্রেকারের জন্য বাংলার সার্বিক উন্নয়ন সম্ভব হচ্ছেনা ।

তাই বাংলা থেকে এই স্পিড ব্রেকার কে সরাতে হবে তবেই সত্যিকারের বিকাশ সম্ভব ।এছাড়া এখানে সাধারণ মানুষের টাকা নিয়ে যেসব কেলেঙ্কারি হয়েছে তার কোনো সমাধান ই মুখ্যমন্ত্রী করতে পারেন নি ।উনি বলেন দিদি গরিবদের নিয়ে রাজনীতি করতে মশগুল যায় আছে ।ওনার কথায় সবসময় গরিব দের নিয়ে চিন্তা করছেন এটা প্রকাশ করতে দেখা যায় । এই অবস্থায় গরিবদের সাথে ভালো কজন কি করে করা সম্ভব ।গরিব যেদিন শেষ হয়ে যাবে সেদিন দিদির রাজনীতি বন্ধ হয়ে যাবে ।তার সাথে তিনি বলেন কংগ্রেস ও কম্মুনিস্ট রা ও একই পন্থা অবলম্বন করে আছে ।

তারা গরিব কে গরিব রাখতেই চায় ।তাতে তাদের রাজনীতি গত ভাবে সুবিধা হবে ।তিনি বলেন মুখ্যমন্ত্রী চোখ কোষে গরিবদের কে দরিদ্রদিমার ওপরে উঠতে দিতে চাইছেনা । বাংলায় চিটফান্ডের মাধ্যমে গরিবদের পায়সা দিদির বিধায়ক , মন্ত্রী ও নেতারা লুটেপুটে খেয়েছে ।ও তাদের সাথীরা পায়সা নিয়ে চম্পট দিয়েছে ।যে গরিবেরা বিশ্বাস করে নিজেদের কষ্টের উপার্জন চিটফাণ্ডে রেখেছিলো তারা আজ সর্বসান্ত ।

দিদি তাদের কে কোনোভাবেই ন্যায় দেয়ারব চেষ্টা করেনি ।গরিব মানুষের একমাত্র চিন্তা চিকিৎসা।তারা ভাবে কোনো কঠিন অসুখ হলে কিভাবে চিকিৎসা করবে ।সেই চিন্তা কে মাথায় রেখে কেন্দ্রীয় সরকার আয়ুষ্মান ভারত যোজনা চালু করেছে ।যেখানে গুরুতর অবস্থায় গরিব মানুষ এককালীন পাঁচ লক্ষও টাকা বীমা স্বরূপ পাবে । তাদের হাসপাতালের জন্য ১ পয়সা ও খরচ করতে হবেনা ।

কিন্তু স্পিড ব্রেকার দিদি পশ্চিমবঙ্গের গরিবের জন্য এই কাজে ব্রেক লাগিয়ে দিয়েছেন।এছাড়া পশ্চিমবঙ্গের ৭০ লক্ষ কৃষক দের বিকাশের কাজেও ব্রেক লাগিয়ে দিয়েছে ।ভারতবর্ষের প্রত্যেক জায়গায় যেখানে কৃষকদের ব্যাঙ্ক একাউন্টে প্ৰধানমন্ত্ৰী সম্মান যোজনার খাতে টাকা ট্রান্সফার করা হচ্ছে সেখানে এখানকার কৃষকদের কাজে দিদি ব্রেক লাগিয়ে দিয়ে তাদের ভালো করতে দিচ্ছেনা ।তিনি বলেন বিগত পাঁচ বছরে দেশ অগ্রগতির একটা চূড়ায় পৌঁছেছে । জনগনের উদ্যেশ্যে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন যে তাদের সমর্থন ও পাশে থাকার জন্য তিনি যেকোনো বড়ো বড়ো শক্তির সাথে মোকাবিলা করতে পারছেন ।তারা যদি এইভাবেই তার পাশে থাকে তাহলে তিনি দেশকে উন্নতির চরম শিখরে পৌঁছে দেবেন ।পুলওয়ামার জঙ্গি হামলার পরে পাকিস্তানের উপরে করা সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের ব্যাপারে তিনি জনতার কাছে প্রশ্ন করেন যে এই চৌকিদারের সিদ্ধান্ত ঠিক ছিল কিনা ।দেশের শত্রু কে উপযুক্ত যাবার দেয়ার জন্য তাদের ঘরের ভেতরে গিয়ে মেরে ফেলার জন্য এই চৌকিদার যেথেষ্ট সক্ষম । তিনি বলেন সেনাবাহিনী কে সম্পূর্ণ স্বাধীনতা দেওয়া হয়েছিল এই ব্যাপারে তারা দেশের সুরক্ষার জন্য যে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারে ।তাই এইবারের ভোট তিনি নিজেকে প্রধানমন্ত্রী বানানোর জন্য চাইলেন না । চাইলেন সেই সব সেনাদের উদ্যেশ্যে সম্মান জানানোর জন্য যারা দেশের সুরক্ষার জন্য নিজেদের প্রাণ উৎসর্গ করেছেন ।এছাড়া তিনি দুর্নীতিগ্রস্ত নেতা বা দলের বিভিন্ন কেলেঙ্কারি র বিরুদ্ধে ও পদক্ষেপ নেবেন। আবার অন্যদিকে তিনি বলেন যে এখানে এনআরসি কে নিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলি মানুষের মধ্যে গুজব ছড়াচ্ছে ।মানুষ কে ভয় পাইয়ে দিয়ে বিভ্রান্ত করছে ।তিনি সবাইকে আশ্বাস দেন এমন কোনো কাজ এনআরসি কে নিয়ে হবেনা যাতে এখানকার বাসিন্দাদের সাথে অন্যায় করা হয় । তিনি উল্লেখ করেন পশ্চিম্বঙ্গে টিএমসি র ছত্রছায়ায় থেকে বহু নেতা মানুষকে সমস্যায় ফেলছে ও মানুষের সাথে দুর্নীতি , মিথ্যাচার করছে । তিনি কোনো নির্দোষ মানুষের সাথে কোনো রকমের অন্যায় হতে দেবেন না ।এরপরে তিনি দার্জিলিং লোকসভা ও জলপাইগুড়ি, রায়গঞ্জ এবং কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থীদের জন্য এই নির্বাচনে ভোটদানের আবেদন করেন ।

Post a Comment

0 Comments