ads

পুলকারের ধাক্কায় মৃত্যু এক মহিলার,ঘটনায় পুলকারটিতে আগুন লাগিয়ে বিক্ষোভ গ্রামবাসীর। UBG NEWS


UBG NEWS , মালদা : বেসরকারি স্কুলের একটি পুলকারের ধাক্কায় মৃত্যু হল এক মহিলার। জখম হয়েছেন মৃতের পরিবারের আরও তিনজন। এই ঘটনার জেরে ওই পুলকারটিতে আগুন ধরিয়ে ব্যাপক বিক্ষোভ দেখালেন উত্তেজিত গ্রামবাসীরা। বুধবার দুপুর ১টা নাগাদ ঘটনাটি ঘটেছে চাচল থানার চন্দ্রপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের যদুপুর গ্রামের বাঁধরোড গ্রামীণ সড়কে। চাচলে পথ দুর্ঘটনার পর আহতদের হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসা হয়েছে । জ্বলছে গাড়ি। কান্নায় ভেঙে পড়েছে পরিবার।


পরিস্থিতি সামলাতে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় চাচল থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী। ঘাতক চালককে গ্রেপ্তারের দাবিতে পুলিশের সামনেই প্রতিবাদে সোচ্চার হোন স্থানীয় গ্রামবাসীরা। 

যদিও এই দুর্ঘটনার পর এলাকা থেকে চম্পট দিয়েছে ওই পুলকারের চালক বলে জানিয়েছে পুলিশ। পুরো ঘটনাটি নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে চাচল থানার পুলিশ। আগুন নেভাতে চাচল শহর থেকে দমকলের একটি ইঞ্জিন ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। আধ ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে পুরোপুরি নষ্ট হয়ে গিয়েছে ওই পুলকারটি।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতের নাম আজমিরা বিবি (২৪)। জখম হয়েছেন মৃতের পাঁচ বছরের ছেলে আসিফ মেহেবুব , মা নার্গিস বিবি (৫০) এবং দাদার মেয়ে জাসমিন খাতুন (৮)। আহত এই তিনজনকে চিকিৎসার জন্য চাচোল সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানিয়েছেন , আহতদের মাথায়, কোমরে এবং বুকে গুরুতর চোট রয়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসার পর আহতদের মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে রেফার করার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। 



প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, যদুপুর গ্রামের বাসিন্দা আজমিরা বিবি'র বাড়িতে সামাজিক অনুষ্ঠান ছিল। আর সেই অনুষ্ঠানের জন্যই গ্রামে নিমন্ত্রণ পত্র দিতে বেরিয়েছিলেন তারা। আজমিরা বিবি তার মা, ছেলে এবং দাদার মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে গ্রামের বাড়ি বাড়ি নিমন্ত্রণ পত্র দিয়ে বেড়াচ্ছিলেন । যদুপুর গ্রামের বাঁধরোড এলাকার গ্রামীণ সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় পিছন থেকে একটি চার চাকার পুলকার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সজোরে এসে ধাক্কা মারে। তাতেই ঘটনাস্থলে মৃত্যু হয় আজমিরা বিবি'র। বাকি তিনজন রক্তাক্ত অবস্থায় রাস্তায় পড়ে থাকেন। এই পরিস্থিতিতে বেগতিক হয়ে এলাকা থেকে পালিয়ে যায় চালক ।ততক্ষনে গ্রামবাসীরা হইচই করে ছুটে আসেন । মৃত ও আহতদের উদ্ধার করার পর তাদের চাচল সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। 

চাচল থানার আইসি সুকুমার ঘোষ জানিয়েছেন, পথ দুর্ঘটনার পর এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। দমকলের একটি ইঞ্জিন এসে ওই পুলকারের আগুন নেভানোর ব্যবস্থা করেছে। গাড়ির চালক চাচোলের গালিমপুর এলাকার বাসিন্দা বলে প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে। তবে তার নাম ও পরিচয় সম্পর্কে খোঁজ চালানো হচ্ছে। পাশাপাশি পুরো ঘটনাটি নিয়ে তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

Post a Comment

0 Comments