ads

বিজেপি নেতাকে পার্টি অফিসে তুলে নিয়ে পেটাল তৃণমূল নেতাকর্মীরা, চাঞ্চল্য কোচবিহারে | UBG NEWS

UBG NEWS, কোচবিহার : এক বিজেপি নেতাকে নিজেদের পার্টি অফিসে তুলে নিয়ে গিয়ে পেটানোর অভিযোগ উঠল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে কোচবিহার জেলার শীতলকুচি ব্লকের ঠগেরডাঙা এলাকায়। বিজেপির তরফ থেকে থানায় ও নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। যদিও বিজেপির সব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূল।

বিজেপির অভিযোগ, রবিবার সন্ধ্যায় ব্লক সভাপতিদের সাথে বৈঠক সেরে ফিরছিলেন স্থানীয় বিজেপি নেতা বরেনচন্দ্র বর্মণ। এইসময় তাঁকে তৃণমূল নেতা কর্মীরা স্থানীয় তৃণমূল পার্টি অফিসে ঢুকিয়ে বেধড়ক মারধর করে।

ওই ঘটনায় গুরুত্বর আহত বরেনচন্দ্রকে উদ্ধার করে শীতলকুচি প্রাথমিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু সেখানে তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় রবিবার মাঝরাতে তাঁকে কোচবিহার জেলা হাসপাতালে স্থানাস্তরিত করা হয়েছে। এই ঘটনায় আহত হন আরও একজন বিজেপি নেতা। তাকেও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।


তবে সব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূলের দাবি, মিটিং থেকে ফেরার পথে ওই নেতার বাইকে ধাক্কা লাগে এক ব্যক্তির। সেই কারনে, গন্ডোগল শুরু হয়। এর সঙ্গে রাজনীতি বা তৃণমূলের কোন সম্পর্ক নেই। বিনাকারণে তৃণমূল কংগ্রেসের নাম জড়ান হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্থানিয় তৃণমূল নেতারা।

এই ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের দারস্থ হচ্ছে বিজেপি। ভোটের মুখে বিজেপি নেতা কর্মীদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করতেই তৃণমূলের এই পরিকল্পিত হামলা বলে অভিযোগ দায়ের হচ্ছে নির্বাচন কমিশনে।

শীতলকুচি ব্লকের তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি আবেদ আলি মিঞা বলেন, “ঘটনাটি সত্যি নয়। তৃণমূল কর্মীরা এমন কিছু করলে আমি জানতাম। সম্পূর্ণ মিথ্যে অভিযোগ”।

কোচবিহার জেলা বিজেপি সভানেত্রী মালতী রাভা বলেন, “লোকসভায় আমাদের প্রার্থী দেওয়া হয়নি এখনও। বৈঠক ছাড়া সভার কাজ যাতে শুরু না করতে পারি তাই শাসকদল আমাদের কর্মীদের মারধর করছে। সেটা অন্যায়। কোচবিহারে সব জায়গায় আক্রান্ত হচ্ছে আমাদের কর্মীরা। মানুষ লোকসভা নির্বাচনে এর জবাব দেবে”।

Post a Comment