ads

কাশ্মীর সীমান্তে পাক গোলায় মায়ের সঙ্গে মৃত্যু দুই শিশুর | UBG NEWS

UBG NEWS, ওয়েব ডেস্ক : মুখে শান্তির বাণী। কিন্তু অন্যদিকে বিনা প্ররোচনায় সংঘর্ষ বিরতি লঙ্ঘন করে সাধারণ মানুষের বাড়িতে গোলাবর্ষণ করছে পাক সেনা। শুক্রবার রাতেও পাক গোলায় পুঞ্চের সালোতরী গ্রামে একই পরিবারের তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের মধ্যে একজন মহিলা এবং তাঁর পাঁচ বছরের ছেলে ও নমাসের কন্যা রয়েছে। জানা গিয়েছে, মৃত মহিলার নাম রুবানা কোসার (২৪‌)। ওই দুই শিশুর নাম ফাজান এবং শবনম, গুরুতর আহত অবস্থায় রয়েছেন রুবানার স্বামী মহম্মদ ইউনূস। এ ছাড়া পাক গোলাবর্ষণে গুরুতর আহত হয়েছেন আরও বেশ কয়েক জন সাধারণ নাগরিক।

কৃষ্ণাঘাঁটি, দেগওয়ার অঞ্চল থেকেও মানুষের বসতবাড়ি লক্ষ্য করে টানা গোলাবর্ষণের খবর আসছে। কামালকোটে সীমান্ত-ঘেঁষা এলাকায় পাক-গোলায় জখম হন বছর তিরিশের রিয়াজ আহমেদ খান। ওই অঞ্চলে পাক গোলায় বহু বাড়িরও ক্ষতি হয়েছে। উরি সেক্টরের আরও পাঁচ জায়গায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকেই মাঝেমধ্যেই গোলা এসে পড়ছে বলে সরকারি সূত্রে দাবি।
কাশ্মীরে জনবসতি লক্ষ্য করে মূলত ১০৫ এমএম হাউৎজার কামান এবং মর্টার হামলা চালিয়ে গিয়েছে পাক সেনা। যদিও পাল্টা হামলা চালিয়েছে ভারতও। পাকিস্তানি বোমায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পুঞ্চের সালোতরী গ্রামের একাধিক বাড়িও। তবে শুধু পুঞ্চের সালোতরী গ্রামে নয়, মানকোট এলাকায় গুলি বিনিময়ের মাঝে পড়ে আহত হয়েছেন আরও এক মহিলা। এছাড়া কৃষ্ণাঘাঁটি, বালাকোট সেক্টরেও সংঘর্ষবিরতি লঙ্ঘন করে গোলাবর্ষণ করেছে পাক সেনা।

পরিস্থিতি সামাল দিতে পুঞ্চ ও রাজৌরিতে নিয়ন্ত্রণরেখার পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যে সমস্ত স্কুল বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে জম্মু ও কাশ্মীর প্রশাসন। স্থানীয় বাসিন্দাদের বাড়ির বাইরে বেরতে নিষেধ করেছে প্রশাসন। কামালকোট অঞ্চলে জখম হন এক মেষপালক। সূত্রের খবর, নাকিয়াল সেক্টর ভারতীয় সেনার গোলায় মৃত্যু হয়েছে তিন পাক জওয়ানের।

ফের অশান্ত কাশ্মীর উপত্যকাও। হান্দওয়াড়ায় সেনা-জঙ্গি গুলির লড়াই চলেছে দিনভর। রাতে দুই জৈশ জঙ্গি নিকেশ হলেও, সিআরপিএফের দুজন, জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের দুজন ও এক নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনায় নিহত সিআরপিএফের প্যারামিলিটারি ইনস্পেক্টর পিন্টো দিনকয়েক আগেই কাশ্মীরি ছাত্রদের নিয়ে বিশেষ একটি প্রকল্পে কলকাতায় এসেছিলেন। তার পর শ্রীনগরে ফেরেন সিআরপিএফের ৯২ ব্যাটেলিয়নের এই অফিসার।

অভিনন্দন পাকিস্তানে ধরা পড়ার পর থেকেই শান্তির বার্তা দিয়ে এসেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। কিন্তু সীমান্তে পাক আগ্রাসন কমেনি। আন্তর্জাতিক সীমান্ত ও নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর গোলা বর্ষণ চালিয়ে গিয়েছে পাক সেনা। অস্ত্রবিরতি লঙ্ঘনের পাল্টা জবাব দিয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনীও। জম্মুর পুঞ্চে সীমান্ত পারের গোলার আঘাতে বৃহস্পতিবার রাতেও নিহত হয়েছেন আমিনা আখতার নামে বছর বত্রিশের এক মহিলা। ছুটিতে বাড়িতে আসা এক সেনা জওয়ান জাকির হোসেনও আহত হন। শুক্রবার রাতেও গোলাগুলি থামেনি, বরং তা ক্রমবর্ধমান।

পুঞ্চ, শিলিকোট, শৌরা, চুরুন্ডা, তিলাওয়াড়ি, চাকারা, বুদনা, আলাওয়াদির মতো গ্রামগুলোতে এখনও কনকনে ঠান্ডা। তার মধ্যেও মানুষজনকে বিনিদ্র রাত কাটাতে হচ্ছে। অনেককে বাঙ্কারে আশ্রয় নিতে হচ্ছে। রাজৌরি সেক্টরেও সতর্কতা জারি করা হয়েছে। এদিকে পাকিস্তানে ইমরান খানকে শান্তির জন্য নোবেল পুরস্কার দেবার দাবি উঠেছে। আর ভারতে পাক গোলায় মারা যাচ্ছেন সাধারণ মানুষ, শিশুরা।

Post a Comment

0 Comments