ads

নিশীথ বিজেপিতে যোগদান দিলেও তাঁর অনুগামী পঞ্চায়েত প্রতিনিধিরা তৃণমূলেই রয়ে গেলেন I UBG NEWS

কোচবিহার, ১ মার্চঃ তৃণমূলের বহিস্কৃত যুবনেতা নিশীথ প্রামানিক বিজেপিতে যোগ দিলেও দিনহাটা ১নং পঞ্চায়েত সমিতির নিশীথ অনুগামী সদস্যরা তৃণমূলেই রয়ে গেলেন। গত ২৮ শে ফেব্রুয়ারী তিনি দিল্লীতে গিয়ে বিজেপিতে যোগ দেন। আর সেই খবর পাওয়ার পরেই বিন্দুমাত্র অপেক্ষা না করে তৃণমূল কংগ্রেসে সামিল হলেন তিন পঞ্চায়েত সদস্য। শুক্রবার পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যদের নিয়ে দিনহাটা ১নং ব্লক তৃণমূল সভাপতি নুর আলম হোসেন বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে সভাপতি নুর আলম হোসেন বলেন, দিনহাটা ১নং পঞ্চায়েত সমিতির সকল সদস্যরা তৃণমূলের সঙ্গে রয়েছেন। দিনহাটা ১নং পঞ্চায়েত সমিতি নিশীথ প্রামানিক অনুগামীদের দখলে ছিল। 

জানা গেছে, গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৎকালীন তৃণমূল যুব কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সাধারণ সম্পাদক নিশীথ প্রামানিকের নেতৃত্বে দিনহাটা ও সংলগ্ন এলাকায় বেশ কিছু নির্দল প্রার্থী জয়ী হন। মূলত দলের জেলা নেতারা টিকিট দেওয়ার ক্ষেত্রে তৃণমূলের পুরানো কর্মীদের বঞ্চিত করছে বলে অভিযোগ তুলে নির্দল প্রার্থী দাঁড় করিয়ে জিতিয়ে আনার কৌশল নেন বলে তৃণমূলের মধ্য থেকেই অভিযোগ ওঠে। সেই কৌশলে অনেকটাই সফল হন নিশীথ প্রামাণিক। দিনহাটা ১ নম্বর ব্লকের ৮ টির বেশী গ্রাম পঞ্চায়েত, ১ টি পঞ্চায়েত সমিতি, এমনকি ওই এলাকা থেকে ১টি জেলা পরিষদের আসনেও নির্দল প্রার্থীদের জিতিয়ে আনেন নিশীথ প্রামাণিক।

এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে দিনহাটা ১নং ব্লকে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চরমে ওঠে। জেলা তৃণমূল যুব কংগ্রেস সাধারণ সম্পাদক নিশীথ প্রামাণিকের অনুগামীদের সঙ্গে তৃণমূলের মাদার গোষ্ঠীর দ্বন্দ্ব শুরু হয়। দুই গোষ্ঠী একে অপরের বিরুদ্ধে নির্বাচনে লড়াই করে। পঞ্চায়েত সমিতির একটা উল্লেখযোগ্য আসনে যুব গোষ্ঠীর প্রার্থীরা জয়ী হয়। পঞ্চায়েত সমিতির বোর্ড দখল করে নিশীথ অনুগামী যুব গোষ্ঠী সদস্যরা।
  
কিন্তু পরবর্তী সময়ে মাদার ও যুব গোষ্ঠীর মধ্যে দ্বন্দ্ব চরমে পৌঁছালে তৃণমূলের যুব নেতা নিশীথ প্রামানিককে দল থেকে বহিষ্কার করে তৃণমূল কংগ্রেস। বৃহস্পতিবার নিশীথ প্রামানিক বিজেপিতে যোগদানের পর দিনহাটায় তৃণমূলের অন্দরে প্রচন্ড আলোড়ন সৃষ্টি হয়। দিনহাটা ১নং ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি নুর আলম হোসেন পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যদের নিয়ে তড়িঘড়ি বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে নুর আলম হোসেন জানান, নিশীথ প্রামানিক বিজেপিতে যোগদান করলেও পঞ্চায়েত সমিতির কোন সদস্যই বিজেপিতে যাননি। তারা তৃণমূলের সঙ্গে রয়েছেন। এদিকে সদ্য বিজেপিতে যোগ দেওয়া নিশীথ প্রামাণিকের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও টেলিফোনে তাকে পাওয়া যায়নি। 

এদিন আটিয়াবাড়ি ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের ওই তিন নির্দল পঞ্চায়েত সদস্য জানান, তাঁরা কলকাতায় যান নি ঠিকই, কিন্তু আশা করেছিলেন নিশীথ প্রামাণিক তৃনমূলেই ফিরবে। কিন্তু তিনি শেষ পর্যন্ত বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় তাঁরা তৃণমূল কংগ্রেসে ফিরে আসার সিধান্ত নিয়েছেন। এক পঞ্চায়েত সদস্যের কথায়, “বিজেপির মত সাম্প্রদায়িক শক্তির সাথে যিনি হাত মেলাতে পারেন, তিনি আমাদের নেতা হতে পারেন না। আমরা প্রথম থেকেই মানসিক ভাবে তৃণমূলের সাথে ছিলাম। মাঝে বঞ্চিত করা হচ্ছে বলে মনে হওয়ায় ভুল পথে পা বাড়িয়ে ছিলাম। আজ থেকে আবার মূল স্রোতের সাথেই ফিরে আসলাম।”
         
দিনহাটা ১নং পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মফিজুল হক বলেন, আমরা পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যরা মমতা ব্যানার্জীর আদর্শে তৃণমূল দল করি। আমরা কেউ তৃণমূল দল ছেড়ে অন্য কোন দলে যাব না । আমরা তৃণমূল দলেই আছি তৃণমূল দলেই থাকব। যারা প্রচার করছে তারা ভুল প্রচার করছে।

Post a Comment

0 Comments