ads

ভোটের আগে বাঁকুড়ায় উদ্ধার বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক I UBG NEWS




ওয়েব ডেস্ক : ভোটের আগে বাঁকুড়ায় উদ্ধার বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক। ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়াল বাঁকুড়াতে ৷ অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট, জিলেটিন স্টিক, ডিটোনেটর-সহ বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক উদ্ধার হয়। ঘটনাটি ঘটেছে বাঁকুড়ার শালতোড়ে। অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে সিআইডি আধিকারিক ও স্থানীয় পুলিশ। 

জানা গিয়েছে, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে বাঁকুড়ার শালতোড়ের দাবড়া মোড় এলাকায় একটি গোডাউনে তল্লাশি চালায় সিআইডি আধিকারিকরা। সেখান থেকেই উদ্ধার হয়েছে বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক। পাওয়া গিয়েছে, প্রায় ১৩৩ বস্তা অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট, ৬ হাজার ৬৬০ টি জিলেটিন স্টিক ও  ১০৬ প্যাকেট ডিটোনেটর। সূত্রের খবর, ওই গোডাউনটির মালিকের নাম সামিরুদ্দিন খান। এদিন গোডাউনে তল্লাশি চালিয়ে বিস্ফোরক উদ্ধার হয়৷ অভিযুক্ত মালিক সামিরুদ্দিনের এখনও খোঁজ পাননি সিআইডি আধিকারিকরা। প্রাথমিক তদন্তে অনুমান, বাইরে থেকে এনে ওই বিস্ফোরকগুলো গোডাউনে মজুত করে রাখা হয়েছিল। স্থানীয় সূত্রে খবর, দীর্ঘদিন ধরে শালতোড়ের ওই গোডাউনটি ব্যবসার কাজে ব্যবহার করা হত। যদিও স্থানীয়দের দাবি, ওই গোডাউনে দীর্ঘদিন ধরেই ব্যবসা চলত৷ তবে সেখানে কীসের ব্যবসা চলত সে বিষয়ে স্পষ্টভাবে তাঁদের কিছুই জানা ছিল না।

লোকসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণা হয়ে গিয়েছে, তার আগে বাঁকুড়া থেকে বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক উদ্ধারের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে স্থানীয়দের মধ্যে। এই প্রথম নয়, এর আগেও একাধিকবার বাঁকুড়ার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে উদ্ধার হয়েছে বিস্ফোরক। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রায়ই এলাকায় তল্লাশি চালায় পুলিশ। অভিযোগ, তা সত্ত্বেও বরাবরই জেলায় দাপিয়ে বেড়ায় দুষ্কৃতীরা। দীর্ঘদিন ধরেই ওই এলাকায় গোডাউনটিতে বিস্ফোরক মজুত থাকত বলেই অনুমান সিআইডি আধিকারিকদের।  জানা  গিয়েছে, গোডাউন মালিক সামিরুদ্দিনের পরিচয় নিয়ে এখনও স্পষ্টভাবে কিছুই জানতে পারেননি তদন্তকারীরা। এই ঘটনার সঙ্গে আর কারা জড়িত, সেই প্রশ্নের উত্তরের সন্ধানে  শুরু হয়েছে তদন্ত। তবে, বিস্ফোরক উদ্ধারের ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসার পর তা নিয়ে টানাপোড়েন শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। ইতিমধ্যেই ঘটনার দায় চাপিয়ে একে অপরকে কটাক্ষ করতে শুরু করেছে রাজনৈতিক দলগুলি।  তাদের অভিযোগ, লোকসভা নির্বাচনে উত্তেজনা ছড়াতেই বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক মজুত করা হয়েছিল। এদিনের ঘটনায় আতঙ্কে স্থানীয়রা।     

Post a Comment