ads

মার্কিন বাবা-মা কে পেলো তোর্ষার চড় থেকে উদ্ধার হওয়া সারে তিন বছরের এক শিশু I UBG NEWS

কোচবিহারঃ কোচবিহার কোতোয়ালি থানা এলাকার তোর্ষা নদীর চড় থেকে উদ্ধার হয় একটি শিশু কন্যা। পুলিশের অনুমান ছিল সেই সময় শিশু বয়স ছিল মাত্র কয়েক দিন।জন্মের পরেই ওকে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া হয়েছিল নদীর চরে। শিশু টিকে এমন ভাবে ছুড়ে ফেলা হয়েছিল যে তার মেরুদণ্ড বাঁকা হয়ে গিয়ে ছিল। কীটপতঙ্গ ওকে খুবলে খেয়ে ফেলতে চেয়েছিল। কিন্তু কেউ একজন তাঁর চিৎকার শুনতে পায় এগিয়ে আসে। পুলিশ ডাকে। তারপর চিকিৎসায় কিছুটা সুস্থ উঠলে নিরাশ্রয় শিশুদের হোমে জায়গা পেয়ে সে। এখানেই বড় হয়ে উঠছিল। এখন সে সাড়ে তিন বছরের। আর এই বয়সে এসে সে বাবা-মা পেল। এক মার্কিন দম্পতি তাঁকে দত্তক নিলেন।

বৃহস্পতিবার কোচবিহারের বানেশ্বরের একটি হোমে আনুষ্ঠানিক ভাবে ওই শিশুকে আমেরিকার কলম্বাস শহরের বাসিন্দা এলেন পোলে ও ভিক্টোরিয়া পোলের হাতে তুলে দেওয়া হয়। শনিবার ওই শিশুকে নিয়ে তারা দেশে ফিরে যাবেন। সেখানে পোলে দম্পতির আরেক কন্যা সন্তান রয়েছে। তাঁর বয়স চার বছর। এদিন হোমের সেই শিশুকে পেয়ে খুশি মার্কিন দম্পতি জানালেন, “তাঁদের মেয়ে আরেকটা ছোট বোন পেল। দুজনে বন্ধুর মত বড় হবে। আমরা এত সুন্দর একটা শিশুর বাবা-মা হতে পেরে খুব খুশি।”

জেলা শিশু সুরক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান স্নেহাশিস চৌধুরী জানান, ২০১৫ সাল নাগাদ ওকে কোচবিহার শহর লাগোয়া তোর্সা নদীর চর থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। তারপর বেশ কিছুদিন তাঁর হাসপাতালে চিকিৎসা চলে। সেখান থেকে এই হোমে। হোম কর্তৃপক্ষের চিকিৎসক জানিয়েছিলেন, ওকে ফেলে দেওয়ার সময় এমন ভাবে ছুঁড়ে ফেলেছিল, যে ওর মেরুদণ্ড বাকা হয়ে গিয়েছিল। এখন অনেকটাই ভালো। তবে আরও চিকিৎসার দরকার রয়েছে। স্নেহাশিস বাবু বলেন, “এধরনের শিশুদের দত্তক নেওয়ার জন্য বেশ কিছু প্রক্রিয়া রয়েছে। কারা বিভাগে আবেদন করার পর থেকে সেই প্রক্রিয়া শুরু হয়। তারপর আবেদনের সিরিয়াল নম্বর অনুযায়ী যে শিশুর নাম আসে। তাঁর সমস্ত কিছু আবেদনকারীকে জানানো হয়। আদালতের অনুমতি লাগে, শিশুর পাসপোর্ট ভিশা করা হয়। এই শিশুর ক্ষেত্রে সমস্ত কিছুই হয়ে গেছে। এখন ওর নতুন বাবা মায়ের সাথে যাওয়ার পালা।”

Post a Comment

0 Comments