ads

বিমান ভেঙে পড়ায় মেরুদণ্ড ও বুকের পাঁজরে চোট পান অভিনন্দন, এমআরআই রিপোর্টে প্রকাশ I UBG NEWS

ওয়েব ডেস্ক : পাকিস্তানি সেনার হাতে থেকে মুক্তি পাওয়ার পর দিল্লির সেনা হাসপাতালে এখন চিকিৎসা চলছে বায়ুসেনা পাইলট অভিনন্দন বর্তমানের। এমআরআই পরীক্ষায় জানা গেছে তাঁর শরীরে ২ ধরণের আঘাত রয়েছে। এক, মেরুদণ্ডের হাড়ে আঘাত রয়েছে, অন্যটি বুকের পাঁজরে।
বিমান ভেঙে পড়ার পর পাক অধিকৃত কাশ্মীরে আপাতকালীন অবতরণ করেন অভিনন্দন। এরকম ক্ষেত্রে জোরালো আঘাত পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। বিশেষ করে বিমান চালকের পিঠের দিকে। সেই কারণে তাঁর মেরুদণ্ডে চোট লেগেছে বলে মনে করা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে, পাকিস্তানে জরুরি অবতরণের পর স্থানীয়দের হাতে নিগৃহীত হওয়ায় তাঁর বুকের পাঁজরে চোট লেগেছে। হাসপাতাল সূত্রে জানানো হয়েছে, এখনও তাঁর আরও বেশ কিছু পরীক্ষা নিরীক্ষা বাকি।
শারীরিক ছাড়াও মানসিক পরীক্ষাও করা হচ্ছে। জোর দেওয়া হচ্ছে তাঁর মানসিক পরীক্ষার ওপরে। কারণ তিনি একটা ট্রমার মধ্যে দিয়ে গেছেন।
তবে ভিডিওতে যেভাবে অভিনন্দনকে সোজা হয়ে হাঁটতে দেখা গিয়েছ তাতে তার আঘাত খুব একটা গুরুতর নয় বলেই মনে করেছেন বিশেষজ্ঞরা।
প্রাক্তন এয়ার মার্শাল ভি কে ভাটিয়া এ ব্যাপারে সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘’ভিডিওতে যেরকম দেখা যাচ্ছে তাতে তাকে ফিট বলেই মনে হয়। তাই ‘ডিব্রিফিং’ শেষ হওয়ার পরই বায়ুসেনায় ফিরতে পারেন অভিনন্দন।’’
কী ধরণের শারীরিক ও মানসিক পরীক্ষা হবে অভিনন্দনের? এয়ার মার্শাল ভাটিয়া জানিয়েছেন, সাধারণভাবে দেখা হয় ওই ধরণের ঘটনায় কতটা মানসিকভাবে আঘাত পেয়েছেন। জানতে চাওয়া হয় শত্রুপক্ষ তাঁর কাছ থেকে কোনও গোপন তথ্য বের করে নিয়েছে কিনা। এছাড়াও তার ওপরে কোনও শারীরিক অত্যাচার করা হয়েছে কিনা। পাশাপাশি জানতে চাওয়া হয় কী ধরণের কথাবার্তা হয়েছে পাক সেনা অফিসারদের সঙ্গে। সাধারণত একে বলা হয়ে ডিব্রিফিং।
উল্লেখ্য পাকিস্তানের মাটিতে নামার পর অভিনন্দনকে প্রবল মারধর করে জনতা। তাদের হাত থেকে বাঁচতে তিনি একটি পুকুরে ঝাঁপ দেন। জলে ভিজিয়ে দেন তাঁর কাছে থাকা গুরুত্বপূর্ণ নথি। প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারমনকে সেই কাহিনী জানিয়েছেন অভিনন্দন।

Post a Comment

0 Comments