ads

মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপেই কাটল এসএসসি চাকরিপ্রার্থীদের অনশন-জট | UBG NEWS

UBG NEWS, ওয়েব ডেস্ক : বিকাশ ভবনে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের গড়ে দেওয়া কমিটির সঙ্গে বৃহস্পতিবার বৈঠকে বসেন এসএসসি অনশনকারীদের সাত প্রতিনিধি। এ দিন বিকেল ৪টের সময় ওই বৈঠকের পরই সাময়িক ভাবে অনশন প্রত্যাহার নেওয়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করলেন আন্দোলনকারীরা।

এ দিন বৈঠক থেকে বেরিয়ে এসে আন্দোলনকারীদের প্রতিনিধিরা বলেন, “বুধবার মুখ্যমন্ত্রী যে সমস্ত আশ্বাস দিয়েছেন, তাতে আমরা খুশি। তিনি আমাদের জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন। ফলে তাঁর কথার প্রতি আশ্বস্ত হয়ে এবং আজকের বৈঠকে পর সব দিক বিবেচনা করেই আমরা সাময়িক ভাবে অনশন প্রত্যাহার করলাম”।

একই সঙ্গে তাঁরা হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, “মুখ্যমন্ত্রীর গঠিত কমিটি প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, আগামী শুক্রবার থেকেই তারা দায়িত্ব নিয়ে আমাদের দাবিগুলি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেবে। তবে ওই প্রতিশ্রুতি মতো কাজ না হলে আমরা ফের অনশনে বসব এই একই জায়গায়”।

অনশনকারীরা জানান, “মুখ্যমন্ত্রীর উপর আমাদের ভরসা আছে। তবে রাজ্য সরকার দাবি না-মানলে ফের অনশনে যেতে বাধ্য হব”।

কলকাতার মেয়ো রোডে শিক্ষক চাকরি প্রার্থীদের অনশন ২৯ দিনে পড়েছিল বৃহস্পতিবার। শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীর অভিযোগ এবং ওয়েটিং লিস্টে থাকা চাকরিপ্রার্থীদের স্বচ্ছ পথে নিয়োগের দাবিতে এই অনশনে অংশ নিয়েছিলেন ৪০০-র উপর আন্দোলনকারী। গত বুধবার অনশনকারীদের আশ্বাস দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর পরে রাত ১১টা নাগাদ সেখান থেকে অনশন তুলে নিতে বলে পুলিশের হুঁশিয়ারি দেওয়ার অভিযোগও ওঠে।

অনশনস্থলে গিয়ে মমতা জানিয়েছিলেন, “নির্বাচনী আচরণবিধি জারি রয়েছে। ফলে হাত-পা বাঁধা। এখনই কোনো প্রতিশ্রুতি দেওয়া যাবে না। নির্বাচনের পরেই শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের নির্দেশে যে কমিটি গঠন করার কথা বলা হয়েছে, সেই মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। রাজ্য সরকারে উপর ভরসা রাখুন। আমার উপর ভরসা রাখুন”।

এর আগে একাধিক বার অনশনকারীদের সঙ্গে আলোচনা করেছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং এসএসসির চেয়ারম্যান। আন্দোলনকারীদের দাবি-দাওয়া নিয়ে খতিয়ে দেখার আশ্বাস দেওয়া হয় তাঁদের তরফে। কিন্তু মৌখিক আশ্বাসে আন্দোলন থেকে বিরত না-হওয়ার কথা জানান অনশনকারীরা।

অন্য দিকে টানা কয়েক সপ্তাহ অনশনের পর একে একে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন অনশনকারীরা। জানা গিয়েছে, ৭০ জনের বেশি অনশনকারী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এমনকী দু’জন অনশনরত অন্ত‌ঃসত্ত্বার গর্ভস্থ ভ্রুণ নষ্ট হয়ে যাওয়ার কথাও সংবাদ মাধ্যম মারফত প্রকাশ্যে এসেছে। অনশনকারীদের দাবিতে সহমত পোষণ করে তাঁদের পাশে দাঁড়িয়েছেন সমাজের বিশিষ্টরাও।

সব মিলিয়ে ভোটের মুখে এসএসসি চাকরিপ্রার্থীদের অনশন নিয়ে উত্তাল রাজ্য-রাজনীতি। গত বুধবারই অনশনস্থলে গিয়ে মমতা অনুরোধ করেন, চাকরিপ্রার্থীরা যেন অনশন তুলে নেন। লোকসভা নির্বাচনের আচরণবিধি জারি থাকায় এ মুহূর্তে কোনো তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা না-নেওয়া গেলেও ভোটের পর প্রতিশ্রুতি মতোই পদক্ষেপ করবে রাজ্য সরকার।

কিন্তু ওই দিন রাতেই ফের পুলিশের ভূমিকা নিয়ে ধোঁয়াশা সৃষ্টি হয়। অনশনকারীরা জানান, পুলিশের তরফে সকাল ৭টার (বৃহস্পতিবার) মধ্যে জায়গা খালি করে দিতে বলা হয়েছে। গভীর রাতেও প্রেস ক্লাব চত্বরে প্রচুর পুলিশের উপস্থিতিতে স্বাভাবিক ভাবেই উত্তেজনা ছড়ায়। তবে এক দিকে মুখ্যমন্ত্রীর আশ্বাস, অন্য দিকে পুলিশের হুঁশিয়ারির দিকে তাকিয়ে অনশনরত চাকরিপ্রার্থীরা এ দিন সাময়িক ভাবে অনশন প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেওয়ায় আপাতত জট কাটল বলেই মনে করা হচ্ছে।

Post a Comment

0 Comments