ads

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ অগ্রাহ্য করেই চলেছে বালি পাচার, বিক্ষোভ গ্রামবাসীদের | UBG NEWS

UBG NEWS, বর্ধমান : বারবার জেলা সফরে গিয়ে অবৈধ বালি পাচার আর ওভারলোডিংয়ের সমস্যা নিয়ে রীতিমত হুঁশিয়ারী দিয়েছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। তার সেই হুঁশিয়ারী পাওয়ার পর কয়েক মাস আগে জেলায় জেলায় পুলিশ ও প্রশাসনিক কর্তারা রীতিমত নড়চড়েও বসেন। শুরু হয় ব্যাপক হানাদারি, নজরদারী, ধরপাকড়ও। এই ঘটনায় সাময়িকভাবে প্রকাশ্যে অবৈধভাবে ওভারলোডিং বালি পাচারের কাজ কমলেও ফের সক্রিয় হয়ে উঠেছে অবৈধ ওভারলোডিং বালি পাচার। আর ওভারলোডিং বালি পাচারের জন্য রাস্তার অবস্থা ক্রমশ বেহাল হয়ে ওঠায় এবার বালির লরি আটকে বিক্ষোভ দেখালেন গ্রামবাসীরা। পূর্ব বর্ধমান জেলার গলসী থানার লোয়া-রামগোপালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের রায়পুরে বিক্ষোভে নামেন গ্রামবাসীরা। কসবা থেকে রায়পুর যাওয়ার রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ দেখান তারা।

স্থানীয় তৃণমূল নেতা বদরুদ্দোজা মণ্ডল জানিয়েছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী গ্রাম সড়ক যোজনার এই রাস্তার ওপর দিয়ে ভারী যানবাহন চলাচল সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। কিন্তু সেই নিষেধাজ্ঞাকে তোয়াক্কা না করেই বালিঘাট থেকে ওভারলোডিং বালি বোঝাই লরি যাতায়াত করায় গোটা রাস্তাই ভেঙে তছনছ হয়ে গেছে। গড়ে প্রতিদিন প্রায় ২০০ লরি বালি এই রাস্তা দিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এর ফলে রাস্তা দ্রুত খারাপ হচ্ছে। এমনকি এই রাস্তার ওপরই রয়েছে ব্রিটিশ আমলের বহু পুরনো বেশ কয়েকটি সেতু। সেগুলিরও অবস্থা অত্যন্ত খারাপ। কোন কারণে সেতু ভেঙে গেলে আশপাশের কমবেশি প্রায় ৪০টি গ্রামের মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থা রীতিমত মুখ থুবড়ে পড়বে। বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বেন এই সব গ্রামের মানুষেরা।’

শনিবার হওয়া এই বিক্ষোভের জেরে বালির ওভারলোডিংয়ের বিষয়টি স্বীকার করেছেন খোদ লরির চালকেরাও। লরি চালক সেখ ইরফান জানিয়েছেন, সরকার নির্ধারিত ২২০ সিএফটির বদলে তারা ৪০০ সিএফটি বালি নিয়ে যাচ্ছেন। বালিঘাটের মালিককে বিষয়টি জানিয়েও কোন লাভ হয়নি। এব্যাপারে লোয়া-রামগোপালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য রিজওয়ান সেখ গ্রামবাসীদের এই অভিযোগের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, এই রাস্তা এবং ব্রীজটি মেরামত করার জন্য তারা বহুবার জেলা প্রশাসনের সমস্ত স্তরে জানিয়েছেন। কিন্তু কোন লাভ হয়নি। এখনও পর্যন্ত কোন সুরাহা হয়নি।

Post a Comment

0 Comments