ads

মোবাইল ব্যবহার করায় ৫ পরীক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন বাতিল I UBG NEWS

ওয়েব ডেস্কঃ পরীক্ষা হলে মোবাইল ব্যবহার করায় ৫ পরীক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন বাতিল করছে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। এই ৫ জনের একজন হাওড়া এবং বাকি ৪ জন পুরনো মালদা জেলার দুটি স্কুলের পরীক্ষার্থী। অন্যদিকে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জি জানিয়েছেন, আগামী বছর থেকে মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা পরিচালনা নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে পর্ষদ ও সংসদ যেন বিভিন্ন শিক্ষক সংগঠনগুলির সঙ্গে আলোচনা করে।
মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়েছে উচ্চমাধ্যমিক। সংসদ আগেই জানিয়েছিল পরীক্ষা হলে কোনও পরীক্ষার্থী মোবাইল ব্যবহার করলে তার রেজিস্ট্রেশন বাতিল করা হবে। এদিন পরীক্ষা শেষের পর সংসদ সভাপতি মহুয়া দাস বলেন, ‘‌হাওড়া জেলার একজন পরীক্ষার্থী ও পুরনো মালদা অঞ্চলের ৪ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষা হলে মোবাইল ব্যবহার করার সময় ধরা পড়েছে। সংসদ এই পরীক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশন বাতিলের সিদ্ধান্ত নিচ্ছে।’‌ সংসদ সূত্রে খবর, ৫ জনের মধ্যে ৩ জন মোবাইল সমেত ধরা পড়েছে মালদার শ্যামসুখী বালিকা বিদ্যালয় থেকে, একজন মালদার কালাচাঁদ হাই স্কুল থেকে এবং আরেকজন হাওড়ার সসহাটি নলহাটা অবিনাশ হাই স্কুল থেকে।
এদিন তৃণমূল, সিপিএম, আরএসপি, ফরওয়ার্ড ব্লক, সিপিআই, এসইউসিআই (‌‌সি)‌‌–এর বিভিন্ন শিক্ষক সংগঠন এবং পশ্চিমবঙ্গ শিক্ষক সমিতির প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেন শিক্ষামন্ত্রী। পরে তিনি বলেন, ‘‌মধ্যশিক্ষা পর্ষদ এবং সংসদকে বলব তারা যেন পরীক্ষা নিয়ে বড় কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে বিভিন্ন শিক্ষক সংগঠনের প্রতিনিধিদের আলোচনায় ডাকেন। শুধু শিক্ষক নয়, পর্ষদ ও সংসদের যাঁরা সদস্য তাঁদেরকেও যেন ডাকা হয়। পর্ষদ, সংসদের সিদ্ধান্তে সরকার হস্তক্ষেপ করে না। কিন্তু পরীক্ষা পরিচালনায় শিক্ষকদের গুরুত্ব রয়েছে। তাই তাঁদের মতামত শোনা উচিত বলে আমি মনে করি।’‌ এ বছর পরীক্ষা শুরুর ১ ঘণ্টা আগে, ৯টায় পরীক্ষা কেন্দ্রে পরীক্ষার্থীদের ঢোকার নির্দেশ জারি করেছে সংসদ। যা নিয়ে এবং শিক্ষকদের মোবাইল ব্যবহার করতে না দেওয়া নিয়ে এদিন শিক্ষামন্ত্রীর কাছে অভিযোগ জানান শিক্ষকরা। শিক্ষামন্ত্রী এ নিয়ে বলেন, ‘‌পরীক্ষার মাঝপথে কোনও সিদ্ধান্ত বদল সম্ভব নয়। এই সিদ্ধান্ত সরকারের নয়। সরকার সংসদের এই সিদ্ধান্তে হস্তক্ষেপ করতে পারে না। শিক্ষকরা আগে বিষয়টি বলতে পারতেন। তবে কোনও ঘটনা ঘটলে তার দায় কী শিক্ষকরা নেবেন?‌ তাঁরা কী জোর দিয়ে এটা বলতে পারবেন যে কোনও সমস্যা হবে না?‌’‌ এদিন পর্ষদ সভাপতি কল্যাণময় গাঙ্গুলির সঙ্গেও বৈঠক করেন শিক্ষামন্ত্রী। বলেন, ‘‌পর্ষদকে বলেছি লোক নিয়োগ করুন। কোথায় ফাঁক রয়ে যাচ্ছে তা ভরাট করুন। পরীক্ষা নিয়ে সরকার যেন সমালোচনার মুখে না পড়ে সেটা দেখতে হবে।’‌ পাঠ্যবইয়ের মূল্যায়ন, স্কুলগুলির পরিকাঠামো, শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে এদিন আলোচনা হয়। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘‌তিন মাস অন্তর শিক্ষক সংগঠনগুলির সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করব।’‌ এদিন স্কুলশিক্ষা দপ্তরের ওয়েব পোর্টাল ‘‌বাংলা শিক্ষা’‌র উদ্বোধন করেন শিক্ষামন্ত্রী। এই পোর্টালের মাধ্যমে যে কোনও স্কুল, পড়ুয়া, শিক্ষক, পরিকাঠামো, স্কুলের রুটিন ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে। মে মাস থেকে পুরোপুরি চালু হবে। ‌

Post a Comment

0 Comments