ads

কোচবিহারে এক ব্যক্তিকে ন্যাড়া করে দেওয়ার ঘটনাকে ঘিরে চাঞ্চল্য I UBG NEWS

অর্নাভ পাল,কোচবিহার: লোভ দেখিয়ে প্রায় ৬০ লক্ষ টাকা চিটিং করার অভিযোগ তুলে এক ব্যক্তিকে ন্যাড়া করে দেওয়া হল কোচবিহারে। এমনি এক চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে কোচবিহার শহরের ছাট গুড়িয়া হাঁটি এলাকায়। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে ওই ব্যক্তির নাম কমলেশ রায়। পূর্ত দপ্তরে ঠিকা কর্মী হিসেবে কাজ করতেন তিনি। ছাট গুড়িয়া হাঁটি এলাকায় কমলেশ রায় ও তার স্ত্রী সরস্বতী ভৌমিক রায় প্রায় ৩ বছর  থেকে ভাড়া থাকতেন। এলাকা বাসীর অভিযোগ স্বামী-স্ত্রী মিলে ওই এলাকার প্রায় ২০-২৫ জন লোকের কাছে নানা রকম প্রলোভন দেখিয়ে টাকা নিতেন। গত দুর্গা পূজার থেকে সে সুদ দেওয়া বন্ধ করে দেয়।  তার কাছে টাকা চাইতে গেলে আজ নয় কাল এই ভাবে ঘুরতে থাকে যাদের কাছ থেকে সে টাকা নিয়ে ছিল। স্বামী - স্ত্রী যে অনেকের কাছে থেকেই ভালো অঙ্কের টাকা চিট করেছে তা জানাজানি হতেই আজ এলার লোক জন কমলেশ রায় নামে ওই ব্যক্তিকে ধরে নিয়ে  এসে নাড়িয়ে করে দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। সরস্বতী ভৌমিক রায় বলেন, " আমি এক জনকে অনেক গুল টাকা দিয়ে ছিলাম তিনি আমায় বলে ছিল ৭থেকে ৮ লক্ষ টাকা দিবে কিন্তু তিনি মারা গেছে। আমার পুরো টাকা মার গেছে। তাই আমি একেক জনের কাছ থেকে মোটা সুদে টাকা নিয়ে আরেক জন কে দিতাম। তিনি স্বীকার করেন যে তিনি প্রায় ৫০লক্ষ টাকা নিয়েছে ওই এলাকার মানুষের কাছ থেকে।"
এলাকা বাসী বিশ্বজিৎ সাহা বলেন-" লোকে ভুল বুঝিয়ে প্রলোভন দেখিয়ে এনারা দুজন এই এলাকা থেকে কম করে ৬০ লক্ষ টাকা নিয়েছে। কাউকে বলেছে ৪০ শতাংশ সুদ দেবেন আবার কাউকে বলেছে ৫০ শতাংশ। কিন্তু কাউকেই এক টাকাও দেয়নি। তাই আজ আমারা কমলেশ কে ধরে এনে নাড়িয়া করে দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিলাম।"
কোচবিহার কোতয়ালি থানার পুলিশ এসে কমলেশ রায় ও সরস্বতী ভৌমিক কে তুলে  নিয়ে যায়। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে গোটা বিষয়টির তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

Post a Comment

0 Comments