ads

"রাজনীতির প্রয়োজনে চাই না, দেশের প্রয়োজনে যুদ্ধ হলে আছি", মমতা I UBG NEWS

কলকাতা, ২৮ ফেব্রুয়ারি : "রাজনীতির প্রয়োজনে যুদ্ধ চাই না। একটা নির্বাচনে জেতার জন্য যুদ্ধ চাই না। দেশের প্রয়োজনে যদি যুদ্ধ হয় আমরা আছি।" আজ নবান্নে একথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বৃহস্পতিবার তিনি সংশয় প্রকাশ করে বলেন, ‘‌দেশবাসী এয়ারস্ট্রাইকের কথা জানতে চাইতেই পারে। কারা মারা গিয়েছে?‌ কতজন মারা গিয়েছে?‌ এই বিষয়ে সত্য ঘটনা আমরা জানতে চাই। কারণ অন্যান্য জাতীয় সংবাদসংস্থা এবং আন্তর্জাতিক সংবাদপত্রে লেখা হয়েছে এমন কোনও ঘটনা ঘটেনি। কেউ মারা যায়নি। বোমা কী সঠিক জয়গায় পড়েছিল?‌ নাকি নির্বাচন জিততে এই কৌশল নেওয়া হল?‌’‌  

মুখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রীয় সরকারকে আক্রমণ করে বলেন, "পাঁচ বছরে কিছু হল না। অবশ্য 'উরি' হয়েছে। 'পাঠানকোট' হয়েছে। কিন্তু কোনও ব্যবস্থা হয়নি। আগাম তথ্য থাকা সত্ত্বেও কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। এত জওয়ানকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়া হয়েছে। তারপর হঠাৎ করে ধিতাং ধিতাং তা বলে সমস্ত টিভি চ্যানেলগুলিকে একদফা খাওয়ানো হয়েছে। কেন দেশবাসীকে এভাবে বিপথে চালিত করা হচ্ছে। আমরা আসল ঘটনাটা জানতে চাই।"   

তিনি আরও  বলেন, "মিডিয়া যে এত যুদ্ধ যুদ্ধ করছে, আজ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী বিরোধী দলগুলির সঙ্গে একটাও মিটিং করেননি। পুলওয়ামা বা এয়ারস্ট্রাইকের পরও কোনও আলোচনা করা হয়নি। দেশবাসী হিসেবে আমরা তো এই হামলাগুলি সম্পর্কে জানতেই পারি।" মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, "দেশের পক্ষে আমরা সবাই। দেশমাতাকে সবাই ভালোবাসি। কিন্তু জওয়ানদের রক্ত নিয়ে রাজনীতি করা ভালোবাসি না। জওয়ানদের রক্তের দাম অনেক। জওয়ানরা আমাদের গর্ব। তাঁরা সীমান্তে লড়াই করেন। আর আমরা (কেউ কেউ) রাজনৈতিক ভোটবাক্সের ফায়দা তোলার জন্য রাজনীতি করি। এর নিন্দা করি।"

গত পাঁচ বছরে এমন কিছু ঘটল না। আর নির্বাচন আসতেই এইসব ঘটতে শুরু করল। যা নিয়ে সন্দেহ দানা বাঁধছে বলে উল্লেখ করেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি সাফ জানিয়ে দেন, ‘‌রাজনীতির জন্য জওয়ানদের মৃত্যু চাই না। কারণ জওয়ানরা আমাদের গর্ব। ভোট জেতার জন্য জওয়ানদের মৃত্যু চাই না। যদি দেশের স্বার্থে যুদ্ধ হয়, তাহলে আমরা দেশের পাশে আছি।’‌ ‌‌‌
 

Post a Comment

0 Comments