কোচবিহারে ছাপ্পা ও সন্ত্রাস আটকাতে না পেরে লজ্জায় বিবেক দুবে ও নির্বাচন কমিশন | UBG NEWS

UBG NEWS, কোচবিহার : প্রতিশ্রুতি কি শুধু রাজনৈতিক নেতারা দেন? প্রতিশ্রুতি দেয় নির্বাচন কমিশনও। বাংলার সাধারণ মানুষকে প্রচুর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী অফিসার আরিজ আফতাব। বাংলার ভোটারদের অনেক প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন রাজ্যের ভোটে নিযুক্ত বিশেষ পুলিশ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবেও। কিন্তু মিল একটাই। রাজনৈতিক নেতারাও প্রতিশ্রুতি রাখেন না। আর বিবেক দুবে ও নির্বাচন কমিশনও বাংলার মানুষকে দেওয়া কথা রাখতে পারলেন না। শুধু কোচবিহারে ছাপ্পা ও সন্ত্রাস আটকাতে না পেরে লজ্জায় বিবেক দুবে ও নির্বাচন কমিশন।

রাজ্যে পঞ্চায়েত ভোটে চরম সন্ত্রাসের পরিস্থিতি দেখেও শিক্ষা নেয় নি ভারতের নির্বাচন কমিশন। আর সেই রাজ্য পুলিশের উপর ভরসা করেই ডুবল ভারতের নির্বাচন কমিশন। কেন্দ্রীয় বাহিনী না থাকায় চরম সন্ত্রাস দেখতে পেল কোচবিহার এর বিভিন্ন এলাকা। যেখানে কেন্দ্রীয় বাহিনী নেই সেখানেই দাপিয়ে বেড়াচ্ছে রাজনৈতিক দলের গুণ্ডারা। একের পর এক ছবি উঠে এসেছে সংবাদ মাধ্যমের ক্যামেরায়। নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানিয়েছে বিরোধীরা।

কোচবিহার কেন্দ্র নিয়ে বাড়তি নজর ছিল কমিশনের। ৪৭ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনীর প্রায় পুরোটাই ছিল কোচবিহারে। কোচবিহারে ২০১০টি বুথের মধ্যে ১০৬০টি বুথে ছিল কেন্দ্রীয় বাহিনী। বাকি ৯৫০টি বুথে ছিল রাজ্যের সশস্ত্রবাহিনী। আর বৃহস্পতিবার ভোটের দিন সারাদিন কোচবিহারে থাকার কথা ছিল বিশেষ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবের। কোচবিহারে থেকেই ভোট মনিটরিং করবেন তিনি, এমনটাই কথা ছিল।

কিন্তু দেখা গেল ঠিক উল্টো ছবি। বিশেষ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে কলকাতায় ফিরে গেলেন সকালেই। আর যেখানে যেখানে কেন্দ্রীয় বাহিনী নেই সেই সেই বুথেই দেখা গেল চরম সন্ত্রাস। ঠিক পঞ্চায়েত ভোটের মতই ফের সন্ত্রাস দেখছে রাজ্য। তাও শুধুমাত্র দুটো লোকসভার ভোট। কোচবিহারে যেখানে যেখানে কেন্দ্রীয় বাহিনী নেই, সেখানেই সন্ত্রাস দেখা গিয়েছে বলে অভিযোগ সাধারণ মানুষের।

কোচবিহারের শিতলকুচির অনেক বুথেই বিরোধী প্রার্থীর পোলিং এজেন্টকে ঢুকতেই দেওয়া হয় নি বলে অভিযোগ। এমনকি বুথে যেতে বাধা দেওয়া হয় ভোটারদেরও। সংবাদ মাধ্যমের ক্যামেরার সামনেই চলে হুমকি। ভোটের আগে সব বুথেই কেন্দ্রীয় বাহিনীর দাবি ছিল বিরোধীদের। কিন্তু কোচবিহারে ৯৫০টি বুথে রয়েছে রাজ্য পুলিশ। আর সেই সব বুথের অধিকাংশতেই চলছে চরম রিগিং।

রাজ্য পুলিশ থাকা অধিকাংশ বুথেই চলেছে চরম দাদাগিরি, গুন্ডাগিরি এমনটাই অভিযোগ করেছেন বিরোধীরা। মাথাভাঙা ও দিনহাটার অধিকাংশ বুথেই চলছে ভোটারদের বাধা দেওয়ার কাজ। পঞ্চায়েত ভোট এর কথা বিরোধীদের কাছে বারবার শুনেও কান দেয় নি কমিশন। তার খেসারত প্রথম দফার একটা লোকসভাতেই চোকাতে হল কমিশনকে।

রাজ্যের উপর ভরসা করে ডুবল ভারতের নির্বাচন কমিশন। রাজ্যের পুলিশের উপর নির্ভর করে ডুবল নির্বাচন কমিশন। কেন্দ্রীয় বাহিনী না থাকায় সন্ত্রাস চলছে অধিকাংশ কেন্দ্রীয় বাহিনী হীন বুথে। এমনটাই ভুরি ভুরি অভিযোগ জমা পরেছে নির্বাচন কমিশন এর কাছে। তবে রাজ্য ও রাজ্য পুলিশের উপর ভরসা করে এইভাবে ডুবতে হবে তা ভাবেনইনি বিশেষ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে ও নির্বাচন কমিশন। শুধু কোচবিহারে ছাপ্পা ও সন্ত্রাস আটকাতে না পেরে লজ্জায় বিবেক দুবে ও নির্বাচন কমিশন।